Healthy Foods To Eat With Alcohol: বিরূপ প্রভাব কমাতে অ্যালকোহলের সাথে এই স্বাস্থ্যকর খাবারগুলি অবশ্যই ট্রাই করুন

Healthy Foods To Eat With Alcohol: আজকের প্রতিবেদনে স্বাস্থ্যকর মদ্যপানের অভ্যাসের টিপস এবং এটি অতিরিক্ত এড়িয়ে চলার পরামর্শ দেওয়া হল

 

হাইলাইটস:

  • স্থিতিশীল রক্তের শর্করা গুরুত্বপূর্ণ কারণ মদ এর ফলে দুলুনি, ক্লান্তি এবং মেজাজের পরিবর্তনের মতো সমস্যা দেখা দিতে পারে
  • আপনার খাদ্যতালিকায় চিকেন, টার্কি, মাছ, শিম এবং ডাল জাতীয় লীন প্রোটিন অন্তর্ভুক্ত করলে মদ্যপানের সময় মদের শোষণ ধীর হতে পারে
  • স্বাস্থ্যকর ফ্যাট মস্তিষ্কের স্বাস্থ্যের জন্য অপরিহার্য এবং মদ্যপানের সঙ্গে যুক্ত কিছু জ্ঞানীয় ক্ষতি কমাতে সহায়ক হতে পারে

Healthy Foods To Eat With Alcohol: অনেকের জন্য সামাজিক জমায়েত এবং খাবারের সঙ্গে মদ্যপান একটি সাধারণ ব্যাপার। লোকেরা সপ্তাহান্তে আরাম করতে অপেক্ষা করে। তবে, অতিরিক্ত মদ্যপান শরীরের ওপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে। এই প্রভাবগুলো কমাতে, স্বাস্থ্যকর খাবারের সঙ্গে মদ্যপান করা উপকারী হতে পারে। এই খাবারগুলো রক্তপ্রবাহে মদের শোষণ ধীর করে নেশা এবং হ্যাংওভারের সম্ভাবনা কমায়, পাশাপাশি প্রয়োজনীয় পুষ্টি সরবরাহ করে যা সামগ্রিক স্বাস্থ্যের জন্য সহায়ক।

We’re now on WhatsApp – Click to join

পুরো শস্য

ব্রাউন রাইস, কুইনোয়া, ওটস এবং পুরো গমের রুটির মতো পুরো শস্য মদের সঙ্গে খাওয়ার জন্য চমৎকার পছন্দ। এই জটিল শর্করা রক্তপ্রবাহে গ্লুকোজের ধীর মুক্তি প্রদান করে, যা রক্তের শর্করার স্তর স্থিতিশীল রাখতে সহায়ক।

লীন প্রোটিন

আপনার খাদ্যতালিকায় চিকেন, টার্কি, মাছ, শিম এবং ডাল জাতীয় লীন প্রোটিন অন্তর্ভুক্ত করলে মদ্যপানের সময় মদের শোষণ ধীর হতে পারে। প্রোটিন হজম হতে সময় নেয়, যার ফলে মদ ধীরে ধীরে রক্তপ্রবাহে প্রবেশ করে। এটি রক্তে মদের ঘনত্ব হঠাৎ বেড়ে যাওয়া প্রতিরোধ করতে এবং নেশার ঝুঁকি কমাতে সহায়ক।

স্বাস্থ্যকর ফ্যাট

অ্যাভোকাডো, বাদাম, বীজ এবং জলপাই তেলের মতো স্বাস্থ্যকর ফ্যাট মদ্যপানের সঙ্গে খাওয়ার জন্য চমৎকার সংযোজন। ফ্যাট হজম হতে দীর্ঘ সময় নেয়, যা মদের শোষণের হার কমাতে সহায়ক। এগুলো পরিতৃপ্তির অনুভূতি প্রদান করে, যা অতিরিক্ত খাওয়া এবং অতিরিক্ত মদ্যপান প্রতিরোধ করতে পারে।

ফল এবং সবজি

ফল এবং সবজি প্রয়োজনীয় ভিটামিন, খনিজ এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্টে সমৃদ্ধ, যা মদ্যপানের কারণে সৃষ্ট কিছু অক্সিডেটিভ স্ট্রেস এবং প্রদাহ কমাতে সহায়ক। স্ট্রবেরি, ব্লুবেরি এবং রাস্পবেরি উচ্চ অ্যান্টিঅক্সিডেন্টে সমৃদ্ধ, যা আপনার কোষকে ক্ষতি থেকে রক্ষা করতে সহায়ক।

ফারমেন্টেড খাবার

দই, কেফির, কিমচি এবং সাওয়ারক্রাউটের মতো ফারমেন্টেড খাবারে প্রোবায়োটিক থাকে, যা অন্ত্রের স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী। মদ্যপান অন্ত্রের ভাল ব্যাকটেরিয়ার ভারসাম্য বিঘ্নিত করতে পারে, যা হজমের সমস্যার সৃষ্টি করতে পারে।

Read more – মাঝারি উপভোগ এবং অ্যালকোহল সেবনে অত্যধিক প্রবৃত্তির মধ্যে সূক্ষ্ম ভারসাম্যগুলি অন্বেষণ করুন

বাদাম এবং বীজ

বাদাম এবং বীজ মদের সঙ্গে খাওয়ার জন্য চমৎকার স্ন্যাকস। এগুলি স্বাস্থ্যকর ফ্যাট, প্রোটিন এবং ফাইবারে সমৃদ্ধ, যা মদের শোষণ ধীর করতে সহায়ক। এগুলি ম্যাগনেসিয়ামের মতো প্রয়োজনীয় পুষ্টি উপাদান সরবরাহ করে, যা পেশীতে টান প্রতিরোধ করতে এবং ঘুমের গুণমান উন্নত করতে সহায়ক হতে পারে, যা উভয়ই মদ্যপানের কারণে প্রভাবিত হতে পারে।

হার্বস এবং মসলা

খাবারে হার্বস এবং মসলা যোগ করা অতিরিক্ত স্বাস্থ্য উপকারিতা প্রদান করতে পারে। আদা তার বমি বমি ভাব প্রতিরোধী বৈশিষ্ট্যের জন্য পরিচিত, যা মদ্যপানের সঙ্গে আসা পেটের অস্বস্তি প্রতিরোধ করতে সহায়ক হতে পারে।

ডিম

ডিম উচ্চ মানের প্রোটিনের একটি চমৎকার উৎস এবং সিস্টাইন নামক অ্যামিনো অ্যাসিড থাকে, যা অ্যাসিটালডিহাইড ভেঙে ফেলতে সহায়ক, যা মদ বিপাকের একটি বিষাক্ত উপজাত।

We’re now on Telegram – Click to join

জল

যদিও এটি একটি খাবার নয়, তবুও মদের সঙ্গে পানি খাওয়া অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। অ্যালকোহলযুক্ত পানীয়ের মধ্যে পানি পান করলে ডিহাইড্রেশন প্রতিরোধ, হ্যাংওভার হওয়ার সম্ভাবনা কমানো এবং সামগ্রিক হাইড্রেশন বজায় রাখতে সহায়ক হতে পারে। এটি মদের কিছু নেতিবাচক প্রভাব কমানোর একটি সহজ কিন্তু কার্যকর উপায়।

স্বাস্থ্যকর মদ্যপানের অভ্যাসের টিপস

স্বাস্থ্যকর খাবার গ্রহণের পাশাপাশি কিছু সচেতন মদ্যপানের অভ্যাস গ্রহণ করলে মদের নেতিবাচক প্রভাব আরও কমানো যেতে পারে। মদের নেতিবাচক প্রভাব কমানোর চাবিকাঠি হল পরিমিতি।

মদের সঙ্গে কী এড়িয়ে চলবেন?

মদের সঙ্গে ওষুধ মিশিয়ে খাওয়া এড়িয়ে চলুন, কারণ এটি বিপজ্জনক প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করতে পারে। ভারী যন্ত্রপাতি এবং গাড়ি চালানো এড়িয়ে চলুন, কারণ মদ সমন্বয় এবং সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষমতা হ্রাস করে। অতিরিক্ত মদ্যপান এড়িয়ে চলুন, যা অ্যালকোহল বিষক্রিয়া এবং দীর্ঘমেয়াদী স্বাস্থ্যের সমস্যার কারণ হতে পারে।

এইরকম স্বাস্থ্য বিষয়ক প্রতিবেদন পেতে ওয়ান ওয়ার্ল্ড নিউজ বাংলার সাথে যুক্ত থাকুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.