Scuba Diving in India: সমুদ্রের নীচের রঙিন জগৎ, জীবন্ত প্রবাল, রঙবেরঙের মাছ দেখতে করে ফেলুন স্কুবা ডাইভিং

Scuba Diving in India: ভারতের কোন কোন জায়গায় এই সুবিধা পাবেন?

হাইলাইটস:

  • সমুদ্রের নীচের রঙিন জগৎ দেখতে চান?
  • জীবন্ত প্রবাল এবং রঙবেরঙের মাছকে হাত দিয়ে স্পর্শ করতে চান?
  • তবে আর দেরি না করে সাহস করে করেই ফেলুন স্কুবা ডাইভিং

Scuba Diving in India: সিনেমা বা টেলিভিশনের পর্দায় তো অনেক দেখেছেন নীল সমুদ্রের নীচের দৃশ্য। তবে স্বচক্ষে তা দেখার অভিজ্ঞতা খুব কম জনেরই আছে। সে জগত যেন এক বিস্ময়ের। যেখানে রয়েছে রকমারি প্রবাল। আর সেই প্রবালের গা দিয়ে চলে যায় রঙিন সব মাছেরা। আপনিও যদি সেই দৃশ্য দেখতে চান তবে ডুব দিতে হবে অতল সমুদ্রে। অর্থাৎ স্কুবা ডাইভিং-এর সাহায্যে দেখে নিতে পারেন সমুদ্রের তলদেশ। জেনে নিন ভারতের কোন কোন জায়গায় স্কুবা ডাইভিংয়ের সুযোগ আছে –

We’re now on WhatsApp – Click to join

স্কুবা ডাইভিং কী?

স্কুবা ডাইভিং (Scuba Diving) হল সমুদ্রের তলদেশের সামুদ্রিক জীবনযাত্রা স্বচক্ষে দেখতে জলের তলায় ডুব দেওয়া। তবে তার জন্য অবশ্যই নির্দিষ্ট পোশাক এবং সরঞ্জাম আছে। এমনকি শুধু ডুব দিলে হয় না, নিয়ে যেতে হয় অক্সিজেন সিলিন্ডারও। তবে স্কুবা ডাইভিংয়ের আগে এ ব্যাপারে নির্দিষ্ট প্রশিক্ষণও দেওয়া হয়। পর্যটকদের সঙ্গে সমুদ্রের তলায় এমন একজন থাকেন, যিনি পুরো বিষয়টি পরিচালনা করেন। এক্ষেত্রে সাঁতার না জানলেও চলে।

সতর্কতা:

যদি কারও হৃদযন্ত্রের সমস্যা, রক্তচাপ জনিত সমস্যা বা শারীরিক কোনও সমস্যা থাকে তবে স্কুবা ডাইভিং না করাই ভালো। অথবা স্কুবা ডাইভিং করার আগে চিকিৎসক এবং প্রশিক্ষকের পরামর্শ নিয়ে তবেই করা উচিত।

লাক্ষাদ্বীপ

ভারতের কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল লাক্ষাদ্বীপ বর্তমানে পর্যটকদের প্ৰিয় ডেস্টিনেশনে পরিণত হয়েছে। এখানের একাধিক জায়গায় স্কুবা ডাইভিংয়ের সুবিধা রয়েছে। সমুদ্রের নীচের বিস্ময়কর জগত দেখতে কাভারাত্তির ডলফিন ডাইভ সেন্টারে যেতে পারেন স্কুবা ডাইভিং করার জন্য। যাঁরা জীবনে প্রথম স্কুবা ডাইভিং করতে চান তাঁদের জন্য এটি একটি উপযুক্ত জায়গা। এছাড়া কাদমাত দ্বীপেও স্কুবা ডাইভিংয়ের সুযোগ রয়েছে। লাক্ষাদ্বীপের মিনিকয়তেও স্কুবা ডাইভিং হয়। কাচের মতো স্বচ্ছ জলে ডুব দিয়ে রকমারি প্রবাল চেনার পাশপাশি রঙিন সমস্ত ছোট-বড় মাছের ঝাঁকের দেখা পাবেন। খরচ পড়বে মাথা পিছু ৫০০০-৭০০০ টাকা।

আন্দামান

সমুদ্রের বিভিন্ন রকমের রঙ যদি স্বচক্ষে দেখতে চান তাহলে লাক্ষাদ্বীপের পরেই নাম আসে আন্দামানেরও। স্কুবা ডাইভিংয়ের জন্য আন্দামান বিখ্যাত। এখানের বিভিন্ন দ্বীপে স্কুবা ডাইভিংয়ের ব্যবস্থা রয়েছে। তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল, হ্যাভলক, নীল এবং রস। এখানে স্কুবা ডাইভিংয়ের আগে পর্যটকদের এ বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। কারণ জলের নীচে কথা বলা সম্ভব নয়, তাই আকারে-ইঙ্গিতে এবং সাংকেতিক ভাষায় বোঝার জন্যই এই প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়ে থাকে। আন্দামানের স্কুবা ডাইভিং করতে গেলে মাথা পিছু ৫০০০-৮০০০ টাকার মতো খরচ হয়। এছাড়া এখানে স্কুবা ডাইভিংয়ের কোর্সও করানো হয়।

We’re now on Telegram – Click to join

পণ্ডিচেরি

পরিষ্কার, পরিচ্ছন্নতা সমুদ্র সৈকতের জন্য পণ্ডিচেরি জায়গাটির পর্যটকদের কাছে অত্যন্ত প্ৰিয় একটি ডেস্টিনেশন। এখানের একাধিক জায়গায় স্কুবা ডাইভিং করা যায়। টেম্পল রিফ, ফোর কর্নারস, দ্য হোল এবং র‌্যাভাইনস এই জায়গাগুলি বিখ্যাত স্কুবা ডাইভিংয়ের জন্য। খরচ পড়ে ৫০০০-৭০০০ টাকার মতো। আপনি চাইলে এখান থেকে স্কুবা ডাইভিংয়ের প্রশিক্ষণও নিতে।

গোয়া

নানা ধরনের জল ক্রীড়ার জন্য বিখ্যাত সমুদ্র নগরী গোয়া। প্যারাসেলিং থেকে ব্যানানা বোট, একাধিক জল ক্রীড়ার ব্যবস্থা রয়েছে এখানে। শুধু তাই নয়, গোয়ার বেশ কিছু জায়গায় স্কুবা ডাইভিংও হয়। গ্র্যান্ড আইল্যান্ড, রক আইল্যান্ড এবং টার্বো টানেলে থেকে স্কুবা ডাইভিং করতে পারেন। খরচ হতে পারে মাথা পিছু ৫০০০-৭০০০ টাকা।

Read more:- দম্পতিদের জন্য ৮টি সেরা দক্ষিণ ভারতীয় ভ্রমণ গন্তব্যগুলি দেখুন

এছাড়াও কর্নাটকের নেত্রানি দ্বীপ, কেরলের কোভলাম এবং গুজরাটের দ্বারকা ছাড়াও বেশ কিছু জায়গায় স্কুবা ডাইভিং হয়।

এইরকম ভ্রমণ সংক্রান্ত প্রতিবেদন পেতে ওয়ান ওয়ার্ল্ড নিউজ বাংলার সাথে যুক্ত থাকুন।

Sanjana Chakraborty

Professional Content Writer

Leave a Reply

Your email address will not be published.