Useful Tips For Acne Prone Skin: এই ঘরোয়া প্রতিকারগুলি মুখের ব্রণ এবং ফোলা কমাতে সাহায্য করে, আজ থেকেই সেগুলি গ্রহণ করুন

Useful Tips For Acne Prone Skin: অ্যালোভেরা এবং হলুদ ব্রণ প্রবণ ত্বকের জন্য উপকারী, ব্রণ চলে যাবে

হাইলাইটস: 

  • বিভিন্ন ধরনের ত্বকের যত্নের জন্য আপনাকে বিভিন্ন পদ্ধতি অবলম্বন করতে হবে।
  • ব্রণ প্রবণ ত্বকের জন্য আপনি বাজারে অনেক পণ্য পাবেন।
  • কেমিক্যাল দিয়ে তৈরি পণ্য ব্রণপ্রবণ ত্বকের জন্য ক্ষতিকর হতে পারে।

Useful Tips For Acne Prone Skin: ত্বকের অনেক প্রকার রয়েছে। বিভিন্ন ধরনের ত্বকের যত্নের জন্য আপনাকে বিভিন্ন পদ্ধতি অবলম্বন করতে হবে। কিছু মানুষের ত্বক ব্রণ প্রবণ হয়। এই ধরনের ত্বক সবসময় বিশেষ যত্ন প্রয়োজন। ব্রণ প্রবণ ত্বকের জন্য আপনি বাজারে অনেক পণ্য পাবেন। কিন্তু এই ধরনের ত্বকে খুব মৃদু পণ্য ব্যবহার করা উচিত। কেমিক্যাল দিয়ে তৈরি পণ্য ব্রণপ্রবণ ত্বকের জন্য ক্ষতিকর হতে পারে। আপনিও যদি এই সমস্যায় ভুগে থাকেন তাহলে অবশ্যই আমাদের দেওয়া এই সমাধানটি ব্যবহার করে দেখুন। আসুন জেনে নেই সেই ব্যবস্থাগুলো সম্পর্কে-

ঘৃতকুমারী:

অ্যালোভেরার অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি এবং অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল বৈশিষ্ট্য রয়েছে। এগুলো ব্রণ কমাতে সাহায্য করে। অ্যালোভেরা জেল সরাসরি ত্বকে লাগাবেন না, বরং দুধ বা গোলাপ জলের সঙ্গে মিশিয়ে মুখে লাগান। এটি আপনাকে ব্রণের সমস্যা থেকে মুক্তি দেবে। ব্রণের কারণে যদি আপনার মুখে ফোলাভাব থাকে, তাও এই প্রতিকারে দূর হয়ে যাবে।

We’re now on Whatsapp – Click to join

গাছ-গাছের তেল:

চা গাছের তেল ছত্রাক বিরোধী। এটি সংক্রমণ সৃষ্টিকারী জীবাণুকে দূর করে। এটিতে প্রদাহরোধী বৈশিষ্ট্য রয়েছে। ব্রণের কারণে ত্বকে ফোলাভাব দেখা দিলেও গাছের তেল ব্যবহার করতে পারেন। যা ফোলা কমাতেও উপকারী হবে। আপনি মধু বা অ্যালোভেরা জেলে মাত্র ২ ফোঁটা গাছের তেল মিশিয়ে মুখে লাগাতে পারেন।

সবুজ চা টোনার:

সবুজ চায়ের জলে গোলাপ জল মিশিয়ে নিন। স্প্রে বোতলে ভরে নিন। তারপর এই মিশ্রণটি আপনার মুখে ফেসিয়াল টোনার হিসেবে ব্যবহার করুন। এতে ত্বকের প্রদাহও কমবে। এটি ব্রণ শুকাতেও সাহায্য করবে।

মধু:

মধুতে রয়েছে অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল এবং অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট বৈশিষ্ট্য যা ব্রণ কমাতে সাহায্য করে। এছাড়াও ত্বকে পুষ্টি যোগান।

হলুদ:

হলুদে অ্যান্টিসেপটিক এবং অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল গুণ রয়েছে। এটিতে অনেক অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে এবং এটি প্রদাহ বিরোধীও। দুধে মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করে মুখে লাগাতে পারেন। আপনি এক চিমটি হলুদ যোগ করে অ্যালোভেরা জেলও ব্যবহার করতে পারেন।

নিম:

নিমের রয়েছে অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল এবং অ্যান্টি-ফাঙ্গাল বৈশিষ্ট্য। যা ব্রণ কমাতে সাহায্য করে। নিম পাতার পেস্ট তৈরি করে মুখে লাগাতে পারেন। অথবা নিম সাবানও ব্যবহার করা যেতে পারে।

দই:

দইয়ে রয়েছে ল্যাকটিক অ্যাসিড। যা ত্বককে এক্সফোলিয়েট করতে এবং দাগ কমাতে সাহায্য করে। যেকোনো ফেস মাস্ক বা ফেস প্যাকের জন্যও দই ব্যবহার করতে পারেন।

এই বিষয়গুলো মাথায় রাখুন:

  • আপনার মুখ দিনে দুবার, সকালে এবং রাতে ধুয়ে ফেলুন।
  • নরম তোয়ালে ব্যবহার করুন।
  • তোয়ালে দিয়ে ত্বকে বেশি ঘষবেন না।
  • তেল এবং মেকআপ অপসারণ করতে ক্লিনজার ব্যবহার করতে ভুলবেন না। আপনার ত্বককে ময়শ্চারাইজ করুন এবং সূর্য থেকে রক্ষা করুন।
  • পুষ্টিকর খাবার খান এবং প্রচুর জল পান করুন।
  • মানসিক চাপ কমাতে।

এইরকম জীবনধারা সম্পর্কিত প্রতিবেদন পেতে ওয়ান ওয়ার্ল্ড নিউজ বাংলার সাথে থাকুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.