Normal Delivery Tips: আপনিও যদি নরমাল ডেলিভারি চান, তাহলে এই বিষয়গুলোর বিশেষ যত্ন নিন

Normal Delivery Tips: গর্ভাবস্থায় এই ৫টি জিনিস খেয়াল রাখুন, অপারেশন করতে হবে না

হাইলাইটস:

  • গর্ভাবস্থায়, মহিলারা প্রায়ই অপারেশনের মাধ্যমে প্রসবের চিন্তা করেন।
  • কিন্তু আজকের বাজে জীবনযাত্রার কারণে নানা ধরনের জটিলতা দেখা দিতে শুরু করেছে।
  • এমন পরিস্থিতিতে এটি এড়াতে স্বাস্থ্যের বিশেষ যত্ন নেওয়া খুবই জরুরি।

Normal Delivery Tips: গর্ভাবস্থায়, মহিলারা প্রায়ই অপারেশনের মাধ্যমে প্রসবের চিন্তা করেন। কিন্তু আজকের বাজে জীবনযাত্রার কারণে নানা ধরনের জটিলতা দেখা দিতে শুরু করেছে। এমন পরিস্থিতিতে এটি এড়াতে স্বাস্থ্যের বিশেষ যত্ন নেওয়া খুবই জরুরি।

We’re now on Whatsapp – Click to join

মহিলাদের স্বাভাবিক প্রসব-

গর্ভাবস্থায় প্রতিটি মহিলাই স্বাভাবিক প্রসব করতে চান। কিন্তু বর্তমান আধুনিক জীবনধারায় শারীরিক পরিশ্রম এতটাই কমে গেছে যে সিজারিয়ানের ঘটনা বাড়তে শুরু করেছে। যাই হোক, আজকের লাইফস্টাইল এতটাই ক্লান্তিকর, একই সাথে অনেক কাজ করার কারণে বয়সের আগেই শরীর বার্ধক্য শুরু করে। আর এর কারণে অনেক স্বাস্থ্য সমস্যা দেখা দিলেও নারীরা আরও বেশি সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছেন। এই ব্যস্ত সময়ে নিজেদের সুস্থ রাখা তাদের জন্য কঠিন হয়ে পড়েছে এবং আগের মতো স্বাভাবিক প্রসব করাও অসম্ভব হয়ে পড়েছে কারণ পুরো গর্ভাবস্থায় প্রতিটি মহিলাকে সমস্ত কাজ করতে হয়, যার কারণে তিনি শারীরিক ও মানসিকভাবে পুরোপুরি ক্লান্ত হয়ে পড়েন। স্বাভাবিক প্রসব করতে মানসিকভাবে অক্ষম। এমন পরিস্থিতিতে, আমরা আপনাকে এমন কিছু বিশেষ টিপস বলি যা অনুসরণ করে আপনি স্বাভাবিক প্রসবের সম্ভাবনা বাড়িয়ে তুলতে পারেন।

সঠিক খাদ্যাভ্যাসের যত্ন নিন-

গর্ভাবস্থায় প্রত্যেক মহিলারই তার খাবারের বিশেষ যত্ন নেওয়া উচিত। এমন সময়ে, একটি সুষম খাদ্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ কারণ মা যখন স্বাস্থ্যকর ও পুষ্টিকর খাবার গ্রহণ করেন, তখন শিশু তা থেকে উপকৃত হয়। পুষ্টির ঘাটতি স্বাভাবিক প্রসবের সম্ভাবনাকে অনেকাংশে কমিয়ে দেয় এবং তাই এই সময়ের মধ্যে আপনাকে অবশ্যই আপনার খাদ্যতালিকায় সবুজ শাকসবজি, ফলমূল, গোটা শস্য এবং সব ধরনের ডাল অন্তর্ভুক্ত করতে হবে।

শারীরিকভাবে সক্রিয় থাকতে হবে-

আপনার গর্ভাবস্থা জুড়ে আপনাকে শারীরিকভাবে সক্রিয় থাকতে হবে, তাই এটি আপনার প্রসব স্বাভাবিক হওয়ার সম্ভাবনাও বাড়িয়ে দেবে। বর্তমান ব্যস্ত জীবনযাপনে নারীরা কম শারীরিক পরিশ্রম করেন যার কারণে তাদের শরীর স্বাভাবিক প্রসবের জন্য প্রস্তুত হয় না। এমন পরিস্থিতিতে একজনকে সি-সেকশনের মাধ্যমে ডেলিভারি করতে হয়। অতএব, যতটা সম্ভব শারীরিকভাবে সক্রিয় থাকার চেষ্টা করাই ভালো।

প্রচুর জল পান করুন –

শীত হোক বা গ্রীষ্ম, প্রত্যেকেরই প্রচুর জল পান করা উচিত। বিশেষ করে যখন আপনি গর্ভবতী হন, তখন পানির যত্ন নেওয়া খুবই গুরুত্বপূর্ণ কারণ শরীর যখন পর্যাপ্ত পানি পায় তখন প্রতিটি অঙ্গ অক্সিজেন পায়। প্রসবের সময় ব্যথা সহ্য করার জন্য একজন মহিলার জন্য সঠিক পরিমাণে জল পান করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এবং এটি আপনার স্বাভাবিক প্রসবের সম্ভাবনাকে উল্লেখযোগ্যভাবে বাড়িয়ে তোলে, তাই শরীরে জলের অভাব হওয়া উচিত নয়।

ঘুমের যত্ন নেওয়া খুবই জরুরি-

আপনি যদি সুস্থ গর্ভাবস্থা চান, তাহলে আপনাকেও সঠিক ঘুম হতে হবে। একটি গভীর এবং পর্যাপ্ত রাতের ঘুম আপনার শরীরকে সুস্থ করে তোলে এবং আপনার মনকে শান্ত রাখে। আপনি যদি ক্লান্ত বোধ করেন তবে ঘুম এড়িয়ে যাবেন না, তবে যতটা সম্ভব দিনের বেলা ঘুমানো এড়িয়ে চলা উচিত কারণ এটি আপনাকে রাতে অস্থির করে তুলতে পারে ঘুমের অভাবে।তবে দিনে ৭-৮ ঘন্টা ঘুম পাওয়া ভালো। নরমাল ডেলিভারিতেও সাহায্য করতে পারে।

একজন ভালো ডাক্তার বাছাই করা জরুরী-

বর্তমান সময়ে, সঠিক এবং জ্ঞানী ডাক্তার নির্বাচন করাও খুব গুরুত্বপূর্ণ। অনেক সময় রোগীকে সঠিকভাবে পরীক্ষা না করেই আর্থিক লাভের জন্য লোকজনকে সিজারিয়ান ডেলিভারির পরামর্শ দেওয়া হয়, এমতাবস্থায় আপনার উচিত বিজ্ঞতার সাথে ডাক্তার বেছে নেওয়া এবং এই বিষয়টিও খতিয়ে দেখা। সেই ডাক্তারের তত্ত্বাবধানে প্রতিদিন কতজন স্বাভাবিক প্রসব হয়?

এইরকম জীবনধারা সম্পর্কিত প্রতিবেদন পেতে ওয়ান ওয়ার্ল্ড নিউজ বাংলার সাথে থাকুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.