Bedroom Vastu Tips: ভুল করেও বেডরুমে এই জিনিস রাখবেন না, স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে দূরত্ব আসতে পারে, মধুর সম্পর্কের জন্য এই পদ্ধতি অবলম্বন করুন

Bedroom Vastu Tips: বেডরুমের বাস্তু ত্রুটি স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্কের উপর খারাপ প্রভাব ফেলে, আজই সংশোধন করুন

হাইলাইটস:

  • শোবার ঘরে রাখা কিছু জিনিসও নেতিবাচক শক্তি তৈরি করে
  • শোবার ঘরে কী রাখা উচিত এবং কী করা উচিত নয় দেখুন
  • স্বামী-স্ত্রীর বেডরুম কোন দিকে হওয়া উচিত?

Bedroom Vastu Tips: যদি পারিবারিক জীবনে অশান্তি বেড়ে যায় বা স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঘন ঘন ঝগড়া হয়, তাহলে আপনার শোবার ঘরও এর কারণ হতে পারে। বাস্তুশাস্ত্র অনুসারে, স্বামী-স্ত্রীর শয়নকক্ষ নির্দিষ্ট দিকে হওয়া উচিত নয়। এছাড়া শোবার ঘরে রাখা কিছু জিনিসও নেতিবাচক শক্তি তৈরি করে।

সজ্জার কারণে বা ভুল তথ্যের কারণে প্রায়শই আমরা আমাদের শোবার ঘরে কিছু জিনিস ফেলে রাখি। কিন্তু এসব কারণে স্বামী-স্ত্রীর জীবনে ফাটল দেখা দিতে পারে। এমতাবস্থায় ঘর থেকে এ ধরনের জিনিস অবিলম্বে সরিয়ে ফেলতে হবে। তাহলে চলুন আজ আপনাদের জানাই স্বামী-স্ত্রীর বেডরুম কোন দিকে হওয়া উচিত এবং শোবার ঘরে কী রাখা উচিত এবং কী করা উচিত নয়।

শোবার ঘরে এই বিষয়গুলো মাথায় রাখুন

শোবার ঘরে কখনই ভূত, অশুভ বা শয়তানের ছবি রাখা উচিত নয়। এতে ঘরে নেতিবাচক শক্তি বাড়ে। আপনার ঘরে এমন কোনো পেইন্টিং থাকলে তা অবিলম্বে সরিয়ে ফেলুন। বেডরুমে সবসময় প্রকৃতির ছবি বা প্রেম সংক্রান্ত ছবি রাখা উচিত।

খেয়াল রাখবেন ঘরের আলো যেন সরাসরি বিছানায় না পড়ে। আলো সবসময় পিছনে বা বাম দিক থেকে আসা উচিত। বাস্তু অনুসারে শোবার ঘরে আয়না থাকা উচিত নয়। তা হলে ঘুমানোর সময় ঢেকে রাখুন।

শোবার ঘরে লোহার আসবাব ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকুন। এটি খিলান, অর্ধচন্দ্রাকার বা এমনকি বৃত্তাকার হওয়া উচিত নয়। শুধুমাত্র আয়তাকার এবং বর্গাকার কাঠের আসবাবপত্রই বাস্তুতে শুভ বলে মনে করা হয়।

আপনার বিছানা কখনই বিমের নীচে রাখা উচিত নয়। মরীচি বিচ্ছেদের প্রতীক। যদি এটি সম্ভব না হয় তবে বিমের নীচে একটি বাঁশি বা উইন্ড চিম ঝুলিয়ে দিন।

বেডরুমে কখনোই কোনো প্রাণী বা মানুষের ছবি রাখা উচিত নয়। এতে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে দূরত্ব তৈরি হয় এমনকি তারা একসঙ্গে বসবাস করলেও। একসঙ্গে বসবাস করেও তারা একাকীত্ব অনুভব করে।

শোবার ঘরে আগুনের ছবি কখনই রাখা উচিত নয়। আগুনকে ধ্বংসের প্রতীক মনে করা হয়। কথিত আছে বেডরুমে রাখলে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে রাগের ভাব বাড়ে। শয়নকক্ষ হল শান্তি ও বিশ্রামের জায়গা। আগুনের ছবি থেকে নির্গত নেতিবাচক শক্তি এই শান্তিকে ব্যাহত করতে পারে।

শোবার ঘরে মৃত পূর্বপুরুষের ছবি রাখা খুবই অশুভ বলে মনে করা হয়। শোবার ঘরে এই ধরনের ছবি স্বামী-স্ত্রীর মনে অশান্তি তৈরি করে। এগুলো স্বাস্থ্যের ওপরও নেতিবাচক প্রভাব ফেলে। পুজো ঘরের উত্তর-পূর্ব দিকের দেওয়ালে সর্বদা পূর্বপুরুষদের ছবি লাগাতে হবে।

এছাড়াও শোবার ঘরে জলের উপাদানের ছবি রাখা এড়িয়ে চলুন। এটা বিশ্বাস করা হয় যে এটি স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে স্থিতিশীলতা আনে না। শোবার ঘরে জলের উপাদানের ছবি রাখলে ঘুম এবং আরাম করা কঠিন হয়। ঘুমেও এর প্রভাব পড়ে।

আপনি বন্য প্রাণীদের খুব পছন্দ করতে পারেন, কিন্তু বেডরুমে তাদের আঁকা বা ছবি রাখবেন না। এগুলোর নেতিবাচক প্রভাব স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে রাগ ও উত্তেজনার অনুভূতি বাড়ায়। তাই শোবার ঘরে এই ধরনের ছবি রাখা এড়িয়ে চলা উচিত।

শোবার ঘরে মহাভারত, তাজমহল, হিংস্র পশু বা পাখির ছবি রাখবেন না। এগুলো মনের মধ্যে নেতিবাচক আবেগ জাগ্রত করে এবং নেতিবাচক শক্তি উৎপন্ন করে।

We’re now on WhatsApp- Click to join

বেডরুমের দিক

আপনার বিবাহিত জীবন সুখীভাবে কাটাতে, আপনার শয়নকক্ষকে করুন প্রেম এবং আকর্ষণের দিকে অর্থাৎ উত্তর বা উত্তর-পশ্চিম দিকে। এই দিকে একটি ঘর থাকলে স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্ক মজবুত হয় এবং জীবনে প্রেম থাকে।

আপনার শয়নকক্ষ যদি দক্ষিণ-পশ্চিম দিকে হয় তবে এটি সম্পর্ক, সংযোগ এবং দক্ষতার ক্ষেত্র। এখানে একটি শয়নকক্ষ থাকা স্বামী এবং স্ত্রীকে তাদের নিজ নিজ কাজে ক্রমাগত দক্ষতা অর্জন করতে সহায়তা করে। আপনি দুজনেই যদি কর্মজীবী ​​দম্পতি হন তবে এই দিকটি আপনার জন্য উপযুক্ত হবে।

পশ্চিম দিকও লাভ ও কৃতিত্বের। এমন পরিস্থিতিতে এই অংশে একটি বেডরুম তৈরি করলে দম্পতি জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে সুবিধা এবং সম্পদ পাবেন। এই দিকটি ব্যবসার সাথে যুক্ত ব্যক্তিদের জন্য সঠিক বলে প্রমাণিত হয়।

স্বামী-স্ত্রীর জন্য আগুনের দিক উত্তর-পূর্ব। ঘরের এই দিকে বা এই দিকে বিছানা রাখা এড়িয়ে চলা উচিত। একইভাবে শয়নকক্ষ দক্ষিণ-পূর্ব দিকে হওয়ার কারণে স্বামী-স্ত্রীর আচরণ অকারণে আক্রমণাত্মক হয়ে ওঠে এবং তারা ছোটখাটো বিষয়ে রাগ করতে শুরু করে। এই কোণে বেডরুম থাকলে অপ্রয়োজনীয় খরচও বেড়ে যায়।

এইরকম আরও গুরুত্বপূর্ণ প্রতিবেদন পেতে ওয়ান ওয়ার্ল্ড নিউজ বাংলার সাথে যুক্ত থাকুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.