জীবনধারা

শ্বশুর-শাশুড়ির সাথে সুখে শান্তিতে থাকার জন্য ৫টি টিপস এখানে বলা হয়েছে

শ্বশুর-শাশুড়ির সাথে মিলিত হতে এবং চাপমুক্ত থাকার জন্য কিছু টিপস দেওয়া হল:

একটি মেয়ে যখন বিয়ের পবিত্র বন্ধনে আবদ্ধ হয়, তখন সে শুধু একটি পরিবার নয়, দুটি পরিবারকে সংযুক্ত করতে কাজ করে। তারা মনে অনেক আশা, চোখে সুন্দর ভবিষ্যৎ নিয়ে শ্বশুরবাড়িতে আসে। কিন্তু বিয়ের পর শ্বশুরবাড়ির সঙ্গে সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ক স্থাপন করা মেয়েটির পক্ষে একটু কঠিন হয়ে পড়ে। অনেক সময় মেয়েটির প্রতি শ্বশুরবাড়ির মনোভাব কঠোর হতে শুরু করে। আবার শ্বশুরবাড়ির প্রত্যাশা পূরণ না করার কারণে এটিই গৃহযুদ্ধ এবং সম্পর্কের দূরত্বের কারণ হয়ে দাঁড়ায়। এমতাবস্থায় শ্বশুরবাড়ির কঠোর মনোভাব দেখে মেয়েটি বিচলিত হয়ে পড়ে এবং সম্পর্কের মিলন ঘটাতে ব্যর্থ হয়। শ্বশুর-শাশুড়ির সাথে মিলিত হতে এবং চাপমুক্ত থাকার জন্য এখানে ৫টি টিপস রয়েছে। এখনে আমরা আপনাকে এমন কিছু উপায় বলবো যার মাধ্যমে আপনি আপনার কঠোর শ্বশুরবাড়ির সাথেও সুখে সহাবস্থান করতে পারেন।

টিভি কীভাবে শ্বশুর-শাশুড়ি এবং পুত্রবধূর মধ্যে সম্পর্ককে চিত্রিত করে:

টিভি সিরিয়াল এবং বলিউড মুভিতে শাশুড়ির আচরণ প্রায়শই কঠোরভাবে দেখানো হয়। বাস্তব জীবনে অনেক শাশুড়ি আছেন যাদের আচরণের কারণে বাড়িতে পুত্রবধূর সাথে মানিয়ে নিতে সমস্যা হয়। শাশুড়িরা এখন পুত্রবধূদেরকে মেয়ের মতো মান্য করা শুরু করলেও আজও অনেক শাশুড়ি আছেন যারা পুত্রবধূর জন্য মানসিক চাপ সৃষ্টি করেন। একই সময়ে অনেক মহিলা তাদের শাশুড়ির খারাপ আচরণের কারণে বিচ্ছিন্ন বোধ করতে শুরু করে। যদিও এটি সঠিক পদ্ধতি নয়, কারণ এটি বিষয়গুলিকে আরও খারাপ করে তুলতে পারে। বাড়িতে শাশুড়িকে উপেক্ষা করা বা অসম্মান করা আপনি আপনার সম্পর্কের মধ্যে আরও পার্থক্য তৈরি করতে পারেন। তাদের অসম্মান না করে, এমন অনেক উপায় রয়েছে যার মাধ্যমে আপনি এই দ্বন্দ্ব এড়াতে এবং তাদের সাথে টেনশনমুক্ত জীবন কাটাতে পারবেন। শ্বশুরবাড়ির লোকের সাথে সুখে শান্তিতে থাকার টিপস দেখে নেওয়া যাক।

১. আপনার সঙ্গীর সাথে একতাবদ্ধ হোন:

আপনার শ্বশুরবাড়ির লোকেরা যদি আপনার সঙ্গীর সাথে এমন কিছু কথা বলে যা আপনার কাছে সত্য নয় এবং আপনি তা জানতে পারেন, তাহলে আপনার সঙ্গীর সাথে ধীরে ধীরে সে সম্পর্কে কথা বলা উচিত। খোলাখুলিভাবে ব্যাখ্যা করুন যে, শ্বশুরবাড়ির এমন আচরণ কীভাবে আপনার জীবন, বিবাহ এবং সামগ্রিকভাবে পরিবারকে প্রভাবিত করছে। আপনার স্বামীর সাথে খোলামেলা কথা বলুন, তাকে বলুন আপনার শ্বশুরবাড়ির লোকেরা তার অনুপস্থিতিতে আপনার সাথে ঠিক কেমন আচরণ করছে। শ্বশুরবাড়ির সামনে আপনার নম্রতা আপনার বুদ্ধিমত্তার পরিচয় দেয়। তাই কোনো কিছু নিয়ে ঝগড়া না করে স্বামীর সঙ্গে সবকিছু শেয়ার করুন।

২. সবকিছু মনের মধ্যে নেবেন না:

আপনার শ্বশুরবাড়ির মনোভাব আপনার জন্য কঠোর হলেও, আপনাকে সর্বদা একটি সরল মনোভাব গ্রহণ করতে হবে। এর জন্য যদি আপনার শ্বশুরবাড়ির লোকেরা আপনাকে কোনও কিছুর জন্য বকাঝকা করে বা অপমান করে, তবে আপনার নম্র আচরণও তাদের সহজ করে দেবে। আপনি যদি চান আপনার এই সরল প্রকৃতির দ্বারা আপনি সহজেই জিনিসগুলি পরিচালনা করতে এবং সম্পর্কের মধ্যে দূরত্বও কমাতে পারবেন।

৩. আপত্তিজনক কথাবার্তা এড়িয়ে চলুন:

যদি আপনার শ্বশুরবাড়ির লোকেরা ইচ্ছাকৃতভাবে এমন কিছু করে যা আপনাকে আঘাত করতে পারে, তাহলে এটা স্পষ্ট যে তারা আপনার মতো নয়। সহজ কথায় আপনার শ্বশুরবাড়ির লোকেরা আপনাকে অপছন্দ করে। এই বিষয় নিয়ে আপনি যত বেশি কথা বলবেন তত বেশি অবমাননাকর কথা শুনতে হবে আপনাকে। সুতরাং এই ধরনের পরিস্থিতিতে আপনার একমাত্র সমাধান হবে যতদূর সম্ভব এইগুলি উপেক্ষা করুন এবং এই নিয়ে বেশি চিন্তা করবেন না।

৪. টিমওয়ার্কের দিকে মনোনিবেশ করুন:

আমাদের বেশিরভাগই বিয়ের পর যৌথ পরিবারে বাস করি। এমন পরিস্থিতিতে স্বামী-স্ত্রীর উচিত টিমওয়ার্কের মতো কাজ করা। স্বামী-স্ত্রীর একে অপরের পূর্ণ সমর্থন প্রয়োজন। অনেক সময় এমন হয় যে, পছন্দ এবং প্রশংসা পাওয়ার আকাঙ্ক্ষায় দম্পতি একে অপরকে ভুলে যায়। আপনাকে সবসময় মনে রাখতে হবে যে, আপনারা দুজনই একটি দল, যেকোনো কাজ একসাথে করা আপনার এবং আপনার স্বামীর দায়িত্ব। যদি আপনার বাবা-মায়ের কাছে না গিয়ে আপনার সম্পর্ক নিয়ে সমস্যা এবং নেতিবাচকতা থাকে, তবে উভয়েরই বাবা-মায়ের সাথে যোগাযোগ করা উচিত।

৫. মেগা সিরিয়ালগুলি এড়িয়ে চলুন:

এমন সময়ও আসে যখন আপনার শ্বশুরবাড়ির লোকেরা আপনাকে অন্যদের সামনে হতাশ করে। সেই সময় নিজেকে শান্ত রাখুন এবং আপনার আচরণ নষ্ট করবেন না। একটি ভালো উপায় হল আপনি তাদের সাথে একটু দূরত্ব তৈরি করুন। আপনি যখন অন্যদের সামনে তাদের কথায় কিছু মনে করবেন না, তখন তারা আপনার আচরণ পছন্দ করবে এবং হয়ত তারা এখন থেকে এমন আচরণ করবে না।

এই সব বিষয় মাথায় রেখে আপনি আপনার শ্বশুরবাড়ির সঙ্গে মিলন ঘটাতে পারেন, সেই সঙ্গে শ্বশুরবাড়ির কঠোর মনোভাবকে ভালো ব্যবহারে পরিবর্তন করতে পারেন।

Sanjana Chakraborty

My name is Sanjana Chakraborty. I'm a content writer. Writing is my passion. I studied literature, so I love writing.

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button