Digi Yatra: ডিজি যাত্রা কি জানেন? নিম্নে বিস্তারিত জেনে নিন

Digi Yatra: জেনে নিন ডিজি যাত্রার ৫টি বড় সুবিধা, কেন দরকার?

হাইলাইটস:

  • ডিজি যাত্রার ৫টি বড় সুবিধা
  • প্রথমবার বিমানবন্দরে কী করবেন?
  • কাগজ ছাড়া বিমানবন্দরে প্রবেশ করবেন কীভাবে?
  • কোন বিমানবন্দরে ডিজি যাত্রা সুবিধা রয়েছে?

Digi Yatra: আপনি যদি বিমানে ভ্রমণ করেন এবং বিমানবন্দরে চেক-ইন-বোর্ডিংয়ের জন্য দীর্ঘ লাইনে সমস্যায় পড়ে থাকেন তবে আপনি ডিজি যাত্রার মাধ্যমে এই ঝামেলা থেকে মুক্তি পেতে পারেন। বিমানবন্দরে আপনাকে শুধু আপনার মুখ স্ক্যান করতে হবে। এর পরে আপনি টার্মিনালের ভিতরে প্রবেশ করতে পারবেন। বোর্ডিং পাস, আধার বা অন্য কোনও নথি দেখাতে হবে না।

ডিজি যাত্রা কি?

ডিজি যাত্রা সুবিধা হল একটি মুখের শনাক্তকরণ ব্যবস্থা এবং পুরো সিস্টেমটি কাগজবিহীন। প্রবেশ, নিরাপত্তা পরীক্ষা, বিমানে বোর্ডিং বা বিমানবন্দরে লাগেজ নামানোর সময় আপনাকে শুধুমাত্র আপনার মুখ দেখাতে হবে। কোনো ফিজিক্যাল বোর্ডিং পাস, অন্য কোনো কাগজ বা অন্য কোনো জিনিস দেখাতে হবে না।

ডিজি যাত্রার জন্য প্রয়োজনীয় ৪টি জিনিস

১. নাম

২. ইমেল আইডি

৩. মোবাইল নম্বর

৪. পরিচয়পত্র (ভোটার আইডি, ড্রাইভিং লাইসেন্স, আধার ইত্যাদি)

কিভাবে নিবন্ধন করবেন?

ডিজি যাত্রায় নিজেকে নিবন্ধন করা খুব সহজ। আপনি প্লে স্টোর বা iOS থেকে ডিজি যাত্রা অ্যাপ্লিকেশন ডাউনলোড করতে পারেন। মোবাইল নম্বর এবং ওটিপির মাধ্যমে এই অ্যাপ্লিকেশনটিতে নিবন্ধন করা যেতে পারে। এর পরে আপনি ডিজিলকার বা অফলাইন মোডে আপনার পরিচয়পত্র আপলোড করতে পারেন। পরিচয় প্রোফাইলিংয়ের পরে, আপনাকে একটি সেলফি আপলোড করতে হবে। এর পরে আপনার ডিজি যাত্রা আইডি তৈরি হবে। india.gov.in-এ দেওয়া তথ্য অনুসারে, টিকিট বুক করার সময় যাত্রী তার ডিজি যাত্রা আইডি নম্বর উদ্ধৃত করতে পারেন। ডিজি যাত্রা আইডি সহ এর ডেটা সংশ্লিষ্ট এয়ারলাইন্সগুলি থেকে প্রস্থান বিমানবন্দরে পাঠানো হবে।

কাগজ ছাড়া বিমানবন্দরে প্রবেশ করবেন কীভাবে?

যেসব বিমানবন্দরে ডিজি যাত্রা সুবিধা চালু করা হয়েছে, সেখানে ডিজি যাত্রা যাত্রীদের জন্য আলাদা গেট তৈরি করা হয়েছে। এই গেটে আপনাকে আপনার বোর্ডিং পাস বা ই-টিকিট (মোবাইলে প্রিন্ট বা সফট কপি) স্ক্যান করতে হবে। বার কোড/কিউআর কোড স্ক্যান করার সময়, সিস্টেম যাত্রীর বিবরণ এবং ফ্লাইটের বিবরণ যাচাই করবে। ডিজি যাত্রা আইডি মুখের স্বীকৃতির মাধ্যমে পরিচয় যাচাই করবে। টিকিট এবং ডিজি যাত্রা আইডি সফলভাবে যাচাই করা হলে, ই-গেট খুলবে। এই সিস্টেম নিরাপত্তা পরীক্ষা এবং বিমান বোর্ডিং এ প্রবেশের অনুমতি দেবে।

প্রথমবার বিমানবন্দরে কী করবেন?

আপনি যদি ডিজি যাত্রায় নিবন্ধন করার পরে প্রথমবার ভ্রমণ করেন তবে আপনার আইডি যাচাই করার জন্য আপনাকে বিমানবন্দরে ডিজি যাত্রা নিবন্ধন কিয়স্কে যেতে হবে। আপনি যদি আইডি প্রুফ হিসেবে আধার দিয়ে থাকেন তাহলে ভেরিফিকেশন হবে অনলাইনে। অন্যান্য আইডির ক্ষেত্রে, সিআইএসএফ ম্যানুয়াল ভেরিফিকেশন করবে। একবার আইডি যাচাই হয়ে গেলে, আপনার ফটো এবং ডেটা ডিজি যাত্রা সিস্টেমে যোগ করা হবে।

কোন বিমানবন্দরে ডিজি যাত্রা সুবিধা রয়েছে?

বর্তমানে দেশের ১৩টি বিমানবন্দরে ডিজি যাত্রার সুবিধা রয়েছে। ডিজি যাত্রা ফাউন্ডেশনের ওয়েবসাইটে দেওয়া তথ্য অনুসারে, এই সুবিধাটি দিল্লি বারাণসী, বেঙ্গালুরু, পুনে, হায়দ্রাবাদ, বিজয়ওয়াড়া, মুম্বাই, কোচি, আহমেদাবাদ, লখনউ, জয়পুর, গুয়াহাটি এবং চেন্নাই বিমানবন্দরে উপলব্ধ। চলতি বছরের মার্চের মধ্যে দেশের আরও ১৪টি বিমানবন্দরে ডিজি যাত্রা সুবিধা চালু করার প্রস্তুতি রয়েছে।

ডিজি যাত্রার ৫টি বড় সুবিধা

১. বোর্ডিং পাস, টিকিট মুদ্রণ এবং পরিচালনার ঝামেলা থেকে মুক্তি।

২. নিরাপত্তা, বোর্ডিং সারি এবং ভিড়।

৩. ডিজি যাত্রা সিস্টেম PNR দিয়ে যাত্রীকে ম্যাপ করবে। এর সাথে, প্রতিটি নিরাপত্তা পরীক্ষায় শুধুমাত্র প্রকৃত যাত্রীদের প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হবে।

৪. বিমানবন্দরগুলিতে যাত্রীদের সম্পর্কে রিয়েল-টাইম তথ্য থাকবে এবং সংস্থান পরিকল্পনা আরও ভালো হয়ে উঠবে।

৫. বিমানবন্দরে যাত্রীদের অবস্থা জেনে বিমান সংস্থাগুলি উপকৃত হবে৷

We’re now on WhatsApp- Click to join

কেন এই প্রয়োজন ছিল?

সরকারের মতে, একটি কেন্দ্রীয় ইকোসিস্টেম তৈরির লক্ষ্যে ডিজি যাত্রা সুবিধা তৈরি করা হয়েছে। এটি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ডিজিটাল ইন্ডিয়া অভিযানের অংশ। এই সুবিধাটি ডিজি যাত্রা ফাউন্ডেশন দ্বারা পরিচালিত হয়, যেটি কোম্পানি আইন ২০১৩ এর অধীনে একটি যৌথ উদ্যোগ কোম্পানি হিসাবে প্রতিষ্ঠিত। বিমানবন্দরে প্রবেশ এবং নিরাপত্তা সংক্রান্ত সমস্ত নির্দেশিকা নির্ধারণের দায়িত্বও এই ফাউন্ডেশনকে দেওয়া হয়েছে।

এইরকম আরও গুরুত্বপূর্ণ প্রতিবেদন পেতে ওয়ান ওয়ার্ল্ড নিউজ বাংলার সাথে যুক্ত থাকুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.