স্বাস্থ্য

৫টি মৌলিক উপায় যা উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে প্রাকৃতিকভাবে সাহায্য করে।

দৈনন্দিন জীবনধারার সঠিক পরিবর্তন আপনাকে সফলভাবে উচ্চ রক্তচাপ পরিচালনা করতে সাহায্য করতে পারে।

উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করা অপরিহার্য হয়ে ওঠে যখন আপনি এটি নির্ণয় করতে বসেন। মানুষ ভয় পায় এই ভেবে যে উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে তাদের ওষুধ খেয়ে বাকি জীবনটা কাটাতে হবে। এটি আপনার শরীরে অতিরিক্ত চাপ সৃষ্টি করতে পারে এবং আপনার রক্তচাপকে আরও বাড়িয়ে তুলতে বিশেষ ভূমিকা নেয়। কিন্তু জীবনধারার সঠিক পরিবর্তন আপনাকে স্বাভাবিকভাবে উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করতে পারে। একটি স্বাস্থ্যকর জীবনধারা আপনাকে ওষুধের প্রয়োজন এড়াতে বা কমাতে সাহায্য করে।

এখানে ৫টি সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ জীবনধারার পরিবর্তনের কথা বলা হয়েছে যা আপনাকে ওষুধের প্রয়োজন ছাড়াই উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করে।

১. অতিরিক্ত ওজন হ্রাস :

এটি বৈজ্ঞানিকভাবে প্রমাণিত যে ওজন বৃদ্ধির সাথে রক্তচাপের মাত্রাও বৃদ্ধি পায়। সুতরাং, আপনার ওজন কমানো এবং ওজনের সঠিক পরিচালনা করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ হয়ে ওঠে। ওজন কমার সাথে সাথেই আপনার উচ্চ রক্তচাপও হ্রাস পেতে পারে।

একটি গবেষণায় তথ্য উঠে এসেছে যে, আপনার কোমরের চারপাশে খুব বেশি ওজন বহন করা, আপনাকে উচ্চ রক্তচাপের ঝুঁকিতে ফেলতে পারে। ওজন কমানোর একাধিক প্রক্রিয়া রয়েছে, সেগুলি হল-ব্যায়াম ও ডায়েটের মাধ্যমে বা উভয়ের সংমিশ্রণের মাধ্যমে। কিন্তু আপনার ডায়েট চার্ট ব্যায়ামের চেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

২. নিয়মিত শরীরচর্চা :

নিয়মিত শারীরিক ক্রিয়াকলাপ আপনার রক্তচাপ ৫ থেকে ৮ মিলিগ্রাম পারদ কমাতে পারে যদি আপনার উচ্চ রক্তচাপ ধরা পড়ে। নিয়মিত শারীরিক কার্যকলাপ মানে সপ্তাহে ৬ থেকে ৭ দিন ৩০ মিনিট করে কার্যকলাপ করতে হবে। এই ৩০ মিনিটের মধ্যে, আপনি প্রাতঃ ভ্রমন, সাঁতার কাটা, সাইকেল চালানো অথবা নাচের মতো কিছু ব্যায়াম চেষ্টা করতে পারেন।

আপনার যদি ইতিমধ্যে উচ্চ রক্তচাপ থাকে তবে নিয়মিত ব্যায়াম আপনাকে উচ্চ রক্তচাপ এড়াতে সাহায্য করতে পারে। এবং যদি আপনার উচ্চ রক্তচাপ থাকে তবে তা নিয়মিত শারীরিক ক্রিয়াকলাপের মাধ্যমে কমানো সম্ভব। আমরা নিয়মিত তার উপর জোর দিচ্ছি কারণ ব্যায়াম বন্ধ করা আপনার রক্তচাপকে বহুগুন বাড়িয়ে দিতে পারে। তাই ধারাবাহিক ভাবে এটি মেনে চলা খুবই জরুরি।

৩. স্বাস্থ্যকর খাদ্য :

একটি স্বাস্থ্যকর খাদ্য উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে অবিশ্বাস্যভাবে সহায়ক। মায়োক্লিনিক দ্বারা একটি গবেষণায় দাবি করা হয়েছে যে, যদি আপনার উচ্চ রক্তচাপ থাকে তবে “শস্য, ফল, শাকসবজি এবং কম চর্বিযুক্ত দুগ্ধজাত খাবার এবং স্যাচুরেটেড ফ্যাট এবং কোলেস্টেরল কম খাওয়া আপনার রক্তচাপ ১১ মিমিগ্রাম পারদ পর্যন্ত কমাতে পারে।” এই খাওয়ার পরিকল্পনাকে “ড্যাশ ডায়েট” বলা হয়। এই ড্যাশ হল উচ্চরক্তচাপ বন্ধ করার জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ ডায়েটের পদ্ধতি।

স্বাস্থ্যকর খাদ্যের সাথে মানিয়ে নেওয়া একটু কঠিন হতে পারে। কিন্তু এটা সম্পূর্ণরূপে সম্ভব। এটি একটি খাদ্যতালিকা তৈরী করতে সাহায্য করে। মূলত খাদ্যতালিকা আপনাকে আপনি কী খাচ্ছেন এবং আপনি কতটা খাচ্ছেন সে সম্পর্কে আরও সচেতন করতে সাহায্য করে। একটি স্বাস্থ্যকর খাদ্যের আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ দিক হল সোডিয়ামের পরিমান কমানো এবং পটাসিয়ামের পরিমান বৃদ্ধি করা। ফল এবং সবজি হল পটাশিয়ামের সবচেয়ে ভালো উৎস। লবণের পরিমান কমাতে হবে কারণ এতে প্রচুর পরিমাণে সোডিয়াম রয়েছে। একটি সাধারণ টেবিল চামচ লবণে ২৩০০ মিলিগ্রাম সোডিয়াম থাকে এবং প্রাপ্তবয়স্কদের জন্য প্রায় ১৫০০ মিলিগ্রাম সোডিয়াম থাকা বাঞ্ছনীয়।

৪. অ্যালকোহল এবং সিগারেটের মতো খারাপ অভ্যাস সীমিত করুন বা ছেড়ে দিন :

মায়োক্লিনিক দ্বারা যে রিপোর্ট পেশ হয়েছে তাতে বলা হয়েছে যে, অতিরিক্ত পরিমাণে অ্যালকোহল আপনার রক্তচাপ বাড়াতে পারে। অন্যদিকে অ্যালকোহলের পরিমান কমালে সেটি রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ এবং কমাতে সাহায্য করতে পারে। সাধারণত মহিলাদের জন্য দিনে একবার পানীয় বা পুরুষদের জন্য দিনে দুবার পানীয় পান করে আপনি সম্ভাব্যভাবে আপনার রক্তচাপ প্রায় ৪ মিনিগ্রাম পারদ কমাতে পারেন। তবে এটি থেকে দূরে থাকাই ভাল কারণ নিয়মিত সেবনের ফলে এটি একটি বদ অভ্যাসে পরিণত হতে পারে। অ্যালকোহল রক্তচাপের ওষুধের কার্যকারিতাও কমিয়ে দেয়। আমার ঠাকুরদাদার হার্ট অ্যাটাক হয়েছিল। আমরা তাকে দ্রুত চিকিৎসা করে পুনরুদ্ধার করতে সক্ষম হয়েছি এবং এখন তার স্বাস্থ্য সম্পর্কে একটু নিশ্চিন্ত বোধ করি। আমরা বাড়িতে বসে https://janesaddiction.org/inderal-online/ থেকে সমস্ত ওষুধ কিনি এবং দামগুলিও আপনার স্বার্থের মধ্যে। আমরা প্রত্যেকের কাছে এই অনলাইন ফার্মেসিটি সুপারিশ করি। এরই সাথে বলি নিজের এবং আপনার কাছের মানুষদের যত্ন নিন।

ধূমপান কয়েক মিনিটের জন্য রক্তচাপ বাড়ায়। ধূমপান ত্যাগ করা আপনার রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করতে পারে। যারা ধূমপান করেন না তারা ধূমপানকারীদের থেকে বেশি দিন বাঁচেন বলে প্রমাণিত হয়েছে।

 

 

৫. মানসিক চাপ নিয়ন্ত্রণ :

যদিও এই ক্ষেত্রে আরও গবেষণার প্রয়োজন আছে। এই ক্ষেত্রে দেখা যায় যে মানসিক চাপ আপনার রক্তচাপকে বাড়িয়ে তুলতে পারে। একইভাবে, অতিরিক্ত মানসিক চাপের কারণে খাবার খাওয়া, মদ্যপান, ধূমপান এবং অন্যান্য কার্যকলাপ হতে পারে যা অস্বাস্থ্যকর প্রমাণিত হতে পারে এবং আপনার রক্তচাপকে অনেকঅংশে বাড়িয়ে তুলতে পারে।

মানসিক চাপ নিয়ন্ত্রণ করা কখনো কখনো উচ্চ রক্তচাপকে স্বাভাবিক মাত্রায় নিয়ে আসতে পারে। মানসিক চাপ কমানোর জন্য আপনার নিজস্ব পদ্ধতি সম্পূর্ণরূপে আপনার উপরই নির্ভর করে। কিন্তু এখানে কিছু উপায় ও পদ্ধতি রয়েছে যা মানুষ অবলম্বন করে।

•মননশীলতা অনুশীলন করা:

আপনি বর্তমানে যে জিনিসটি নিয়ে কাজ করছেন তার উপর কেন্দ্র করে মননশীলতা অনুশীলন করা যেতে পারে। এটি যে কোনো সময় যে কোনো জায়গায় করা যেতে পারে আবার আপনাকে চাপমুক্ত এবং অতিরিক্ত চিন্তা কমাতেও সাহায্য করতে পারে।

•যোগব্যায়াম এবং ধ্যান:

যোগব্যায়াম শুধুমাত্র শারীরিক নয় মানসিক চাপ কমাতে সাহায্য করে বলে প্রমাণিত হয়েছে। একইভাবে যোগব্যায়াম করার সময় ধ্যান করা মানসিক চাপ কমাতে সাহায্য করতে পারে, আপনাকে আরও সচেতন এবং আপনার আবেগকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে।

•আনন্দে বাঁচুন :

গান শোনা বা কিছু শিল্প করা আপনাকে মানসিক চাপ থেকে মুক্তি দিতে সাহায্য করতে পারে। আপনার শখের কাজগুলি করা অত্যন্ত বাঞ্ছনীয়। আপনি যে জিনিসগুলি উপভোগ করেন তা করতে কখনই দোষী বোধ করবেন না।

 

Sanjana Chakraborty

My name is Sanjana Chakraborty. I'm a content writer. Writing is my passion. I studied literature, so I love writing.

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button