জীবনধারা

৫টি খারাপ অভ্যাস যা স্বাস্থ্যকর: পড়ুন এবং পড়ার পর আমাদের ধন্যবাদজ্ঞাপন করুন!

৫টি খারাপ অভ্যাস যা অত্যন্ত স্বাস্থ্যকর এবং এর জন্য কখনোই আফসোস করা উচিত নয়!

লক্ষণীয় বিষয়বস্তু :

•খারাপ অভ্যাস যা আসলে ঠিক খারাপও নয়

•এমন অভ্যাস যা আপনাকে স্বাস্থ্যকর করে তুলবে

খারাপ অভ্যাস যা স্বাস্থ্যকর: বড় হয়ে আমরা সকলেই পাল্টে যাই, সবাই আমরা আমাদের বাবা-মায়ের দ্বারা এমন কাজ করার জন্য তিরস্কার করেছি যা আমাদের জন্য মোটেই ভাল ছিল না। আপনার কী কিছু খারাপ অভ্যাস আছে? আপনি কী তাদের এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন কারণ আপনি জানেন যে সেসব জিনিস আপনার জন্য কী সঠিক? কিন্তু গোপনে তা করা ছাড়া আমাদের আর কোনো উপায় থাকে না। এটা যে মজার তা নয়, কিন্তু তবুও, দিনের শেষে, আমরা সেই অপরাধগুলি করার জন্য নিজেকে অপরাধী বোধ করি! আর আপসোস করি এবং নিজেকে দোষারোপ করি।

সুসংবাদ – তাদের মধ্যে কিছু আসলে খারাপ অভ্যাস নয়। আসলে এই অভ্যাসগুলোর মধ্যে কিছু স্বাস্থ্যকর অভ্যাসও রয়েছে।

তাই পরের বার যখন কেউ আপনার খারাপ অভ্যাসের জন্য আপনাকে তিরস্কার করবে, তখন তা নিয়ে চিন্তা করবেন না – কারণ এই খারাপ অভ্যাসগুলি আসলে আপনার জন্য ভাল প্রমাণিত হয়েছে এবং আপনার জীবনকে উন্নত করতে সাহায্য করেছে।

১. তরল পানীয় – কফি: বিভিন্ন সময়ে অনেক মানুষ আপনার কফির দিকে আঙুল তুলেছে, দাবি করেছে যে এটিই হল হার্ট অ্যাটাক, স্ট্রোক, ক্যান্সার, শরীরের বৃদ্ধি এবং আপনার ঘুমের গুণমানের একমাত্র বিশেষ কারণ। সমস্ত কফিহোলিকের থেকে গবেষণা করে দেখা গেছে যে কফি আসলে অ্যান্টিঅক্সিডেন্টে পূর্ণ এবং গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে যে কফির অনেক স্বাস্থ্যকর উপকারিতা আছে। নন-কফি পানকারীদের তুলনায় কফি পানকারীদের টাইপ ২ ডায়াবেটিস হওয়ার সম্ভাবনা অনেকঅংশে কম। তাদের স্ট্রোক, হৃদযন্ত্রের সমস্যা এবং লিভার ক্যান্সারের কম ঘটনা সামনে এসেছে। কফিতে থাকা কিছু রাসায়নিক আসলে আপনার স্মৃতিশক্তির বৃদ্ধিতে সাহায্য করতে পারে। তাই পরের বার থেকে কেউ যদি আপনাকে এই বিষয়ে কোনো কটু কথা বলার চেষ্টা করলেও, আপনি জানেন যে আপনি আপনার স্বাস্থ্যের উন্নতিই করছেন!

২. নখ কাটা: আপনার হাত ক্ষতিকারক জীবাণু দ্বারা আবৃত, আপনি অবশ্যই এটি জানেন। আপনার নখ কামড়ানো আসলে আপনাকে চাপ এবং উদ্বেগ থেকে মুক্তি দিতে সাহায্য করতে পারে। এটি একটি সত্য প্রমাণিত যে, আপনার নখ কামড়ানোর মাধ্যমে আপনি ক্ষতিকারক জীবাণু এবং ব্যাকটেরিয়া আপনার শরীরে প্রবেশ করতে সাহায্য করেন যা আপনার শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াবে! কিছু ডাক্তার বলেছেন যে, জীবাণুর সংস্পর্শে এসে ছোট আকারের এক্সপোজার আপনাকে আপনার অনাক্রম্যতা গড়ে তুলতে সাহায্য করে, যার ফলে আপনার দীর্ঘমেয়াদে অসুস্থ হওয়ার সম্ভাবনা কম থাকে। এটি আসলে ততটাও খারাপ নয় যতটা আপনি মনে করেন। এটি আপনার স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী।

৩. চকোহোলিক: আমরা সবসময় শুনে থাকি যে চকোলেটই হল চিনির মিশ্রণ যার কোনো পুষ্টিগত মান নেই আর ক্যালোরি একদম নেই বললেই চলে! ডার্ক চকোলেট একেবারে ফ্ল্যাভোনয়েড নামক যৌগ দিয়ে তৈরী, যা ক্যান্সার থেকে স্ট্রোক পর্যন্ত অনেক রোগ এবং স্বাস্থ্য সমস্যা প্রতিরোধে মুখ্য ভূমিকা পালন করে। শুধু নিশ্চিত করুন যে আপনি আপনার লালসা মেটানোর জন্য ডার্ক চকোলেট বেছে নিচ্ছেন। এটা সত্যিই অনেক রোগ এবং স্বাস্থ্য সমস্যা প্রতিরোধ করে!

সুবিধাগুলি দুর্দান্ত – এটি রক্ত ​​​​জমাট বাঁধা প্রতিরোধ করতে এবং ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি হ্রাস করতে সহায়তা করে। প্রতি সপ্তাহে ৪৫ গ্রামের বেশি চকোলেট (প্রায় দুই বার মূল্যের) খাওয়ার ফলে মহিলাদের মধ্যে স্ট্রোকের ঝুঁকি ২০% কমে যায়।

৪. স্নানের সাথে প্রেম ও ঘৃণার সম্পর্ক: স্পষ্টতই যে, আপনি যদি ক্রমাগত স্নান করা এড়িয়ে যান তবে এটি স্বাস্থ্য অথবা সামাজিক জীবনের জন্য একেবারেই কাম্য নয়। কিন্তু গবেষণায় দেখা গেছে যে মাঝে মাঝে স্নান না করা আপনার জন্য ভালো হতে পারে, কারণ খুব ঘন ঘন জলের স্পর্শ আপনার ত্বকে ভালো ব্যাকটেরিয়া দূর করতে পারে। আপনার প্রাকৃতিক তেলগুলি আপনার ত্বককে নমনীয় এবং হাইড্রেটেড রাখে যাতে তারুণ্য দেখা যায় এবং রোগ প্রতিরোধ করতে পারে। সব সময় চুল ধোয়ার দরকার নেই। চুল একটি ফাইবার, যার মানে আপনি যদি এটি প্রতিদিন সারা চুলে জল দিতে শুরু করেন, তাহলে আপনি আপনার চুলের আকৃতি এবং শক্তি হারাতে পারেন।

৫. অতিরিক্ত ঘুমানো: ঘুম প্রতিটি মানুষের খুবই প্রিয়। এটি এমনই যে আমরা গোপনে সকলেই এই উপভোগ পেতে চাই। যদিও যারা প্রতিদিন ১২ ঘন্টার বেশি ঘুমায় তারা বিষণ্নতার সাথে লড়াই করতে পারে, সাধারণ মানুষ তাদের অভ্যস্ততার চেয়ে এক মিনিট বেশি ঘুমানোর পরেও অনেক ভালো বোধ করে। অনেক গবেষণায় সকাল ৭টার আগে ঘুম থেকে ওঠার উপকারিতা সম্পর্কে প্রচার করা হয়েছে কিন্তু, দেরি করে ঘুমানো আসলে আপনার দীর্ঘমেয়াদী স্মৃতিশক্তি, শেখার ক্ষমতা এবং আপনার স্মৃতি সংগঠনকে উন্নত করতে ভীষণভাবে সক্ষম।

অবশেষে বলা যায়, ঘুম অত্যন্তই গুরুত্বপূর্ণ তাদের জন্য যারা সাত ঘন্টা ঘুমানোর সময় পায় না। অনেক সময় ঘুমের অভাব আপনার স্মৃতিশক্তিকে প্রভাবিত করতে পারে; মানসিক সতর্কতা এবং মেজাজ দীর্ঘমেয়াদী ঘুমের অভাব গুরুতর স্বাস্থ্য সমস্যা হতে পারে। সারাদিন না ঘুমালেও একটু বেশি সময় বিছানায় থাকলে খারাপ লাগবে না।

Sanjana Chakraborty

My name is Sanjana Chakraborty. I'm a content writer. Writing is my passion. I studied literature, so I love writing.

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button