জীবনধারা

৫জন ভারতীয় শেফ যারা তাদের রেসিপিগুলির সাথে স্বাস্থ্যকর খাদ্যাভ্যাসের অবদান রেখেছেন এবং আমরা তাদের কাছে অত্যন্ত কৃতজ্ঞ!

ভারতের ৫ জন শেফের ব্যাপারে বিস্তারিত জানুন যারা সবসময় স্বাস্থ্যকর খাবারের প্রচার করেন।

ভারত এমন একটি দেশ যা তার খাদ্য ও ঐতিহ্যের জন্য বিশ্বজুড়ে সমাদৃত। ভারতীয় রন্ধনপ্রণালী সামগ্রিকভাবে বিশ্বের সেরাদের মধ্যে প্রধান একটি হিসাবে বিবেচিত হয়। প্রতিবছর ২০শে অক্টোবর পালিত হয় আন্তর্জাতিক শেফ দিবস। এই দিনটিতে খাবার এবং রেসিপিগুলির সাথে আমাদের পরিচয় করিয়ে দেওয়ার জন্য শেফদের প্রচেষ্টার প্রশংসা জানানো হয়। পেশার ক্ষেত্রে শেফরা কম মূল্যবান ব্যক্তিদের মধ্যে একজন কারণ আমরা তাদের দেখেছি যে কেবল তারা খাবার রান্না করে চলেছে। তবে, আসুন একটি ভিন্ন লেন্স পরিধান করি এবং জানার চেষ্টা করি সেই শেফদের সম্পর্কে যারা ভারতবাসীর খাদ্যাভ্যাস পরিবর্তনে অবদান রেখেছেন।

৫ জন শেফ যারা ভারতীয়দের খাদ্যাভ্যাস পরিবর্তনে অবদান রেখেছেন :

১. অমৃতা রাইচাঁদ :

অমৃতা রাইচাঁদ হলেন খাদ্য শিল্পের একজন সুপরিচিত মুখ যিনি একটি শো নিয়ে এসেছিলেন যার নাম “মাম্মি কা ম্যাজিক।” তিনি প্রিয় মা হয়ে ওঠেন কারণ শিশুদের জন্য স্বাস্থ্যকর রেসিপিগুলি এমনভাবে বলতেন যেগুলি শিশুরা খেতে একদমই আপত্তি করবে না। একটি টিফিন বক্সের ভিতর তার সৃজনশীলতা, স্বাদ এবং স্বাস্থ্যকর খাবারের প্রতি ভালবাসা রেখে, তিনি শিশুদের জন্য প্রচুর লোভনীয় রেসিপি নিয়ে এসেছিলেন। সেই শো-তে তিনি তার নিজের ছেলে আদিত্যর জন্য খাবার তৈরি করতেন। তিনি তার প্রস্তাবিত স্বাস্থ্যকর রেসিপিগুলি বাছাই করার জন্য অন্যান্য মায়েদেরও পথ দেখিয়েছিলেন।

২. সারাংশ গোইলা:

খাদ্য শিল্পের বিখ্যাত মুখগুলির মধ্যে একজন হলেন শেফ সারাংশ গোইলা যিনি একটি সুপরিচিত মুম্বাই ভিত্তিক রেস্তোরাঁ ‘গোইলা বাটার চিকেন’-এর প্রতিষ্ঠাতা। গোইলাকে মাস্টারশেফ অস্ট্রেলিয়াতেও অতিথি হিসেবে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল, যেখানে প্রতিযোগীদের বাটার চিকেনের সংস্করণ রান্না করতে হবে। তিনি অনেক শো করেছেন এবং বিশ্বকে উপহার দিয়েছেন কিছু আকর্ষণীয় রেসিপি। তার অন্যতম বিখ্যাত শো ছিল “ফুড ফুড মহা চ্যালেঞ্জ”, যেখানে তিনি একটি জনপ্রিয় অস্বাস্থ্যকর খাবারের স্বাস্থ্যকর সংস্করণ তৈরি করতেন। তিনি রেসিপি শেয়ার করতেন যা জনপ্রিয় রেসিপি এবং তার স্বাস্থ্যকর সংস্করণে ক্যালোরি গ্রহণের পার্থক্য তুলনা করতে সাহায্য করতে পারে।

৩. অপূর্ব কুন্তে :

শেফ অপূর্ব কুন্তে মূলত একজন শেফ যিনি খাবারে সৃজনশীলতা সঞ্চয় করেন। তিনি তার প্রতিটি খাবারের মেনুতে মূলত সস, কুলিস, কাঁচা স্যালাড, হলুদ, লেবু, তুলসী এবং বেরি ইত্যাদি যোগ করেন। এইসব উপাদান রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে।

৪. মনীশ মেহরোত্রা :

মনীশ মেহরোত্রা হলেন একজন সুপরিচিত মুখ যিনি ফুডিস্তান, বীর সংঘভি পুরস্কার, ২০১০ এবং ২০১২ সালের সেরা শেফ, NDTV গুডটাইমস পরিচালিত রান্নার গেম শো, HT City ক্রিস্টাল অ্যাওয়ার্ডস, আমেরিকান এক্সপ্রেস পরিচালিত বছরের সেরা শেফের মতো পুরস্কার জিতেছিলেন। তার যাত্রাপথের দিকে তাকালে দেখা যায় যে, তিনি ‘কাঁচা’ মেনুর মূল্য বোঝার জন্য ফিলিপাইনের খামারগুলিতে প্রচুর সময় বিনিয়োগ করেছিলেন।

৫. রণবীর ব্রার :

খাদ্য ও স্বাস্থ্যের প্রচারে আরেকটি পরিচিত মুখ হলেন রণবীর ব্রার। তিনি স্ন্যাক অ্যাটাক, হোমমেড, হেলথ ভি টেস্ট ভি এবং ব্রেকফাস্ট এক্সপ্রেস সহ বেশ কয়েকটি শো সঞ্চালনা করেছিলেন। তিনি এই ধারণায় বিশ্বাসী ছিলেন যে, সঠিক খাওয়া মানে সঠিক ধরণের খাবার বাছাই করা এবং স্বাস্থ্যকর রান্না করা যা কেবলমাত্র একদিনের জন্য নয় বরং প্রতিদিনের ভিত্তিতে করা উচিত। তার স্বাস্থ্য সংক্রান্ত টিপসগুলি আমাদের অনেক কাজে লাগে।

সুতরাং, এখানে কয়েকজন শেফ রয়েছেন যারা ভারতীয়দের খাদ্যাভ্যাস পরিবর্তনে বিশেষ অবদান রেখেছেন। তাই বলা যায় যে, স্বাস্থ্যকর খাবার খান এবং সুস্থ থাকুন।

 

 

Sanjana Chakraborty

My name is Sanjana Chakraborty. I'm a content writer. Writing is my passion. I studied literature, so I love writing.

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button