জীবনধারা

১০টি স্বাস্থ্যকর সকালের অনুশীলন যা প্রতিটি সফল ব্যক্তির অনুসরণ করা উচিত করে

একটি বড়ো প্রভাবের জন্য পদক্ষেপ নিন

বাতাসে বইছে শীতের হাওয়া এবং আপনি আপনার উষ্ণ কম্বলে সুন্দরভাবে জড়িয়ে আছেন এবং তারপরে হঠাৎ অ্যালার্ম বন্ধ হয়ে যায়। আমরা সকলেই এই ভয়ঙ্কর অনুভূতির অভিজ্ঞতা পেয়েছি, যখন আমাদের নিজেদের বিছানার আরাম ত্যাগ করতে এবং জীবনের প্রতিদিনের কোলাহলে যেতে বাধ্য করতে হয়।

কিন্তু আপনি কী জানেন যে, এটি করার একটি সঠিক উপায় আছে? এটি সঠিক ভাবে শুরু করার কল্পনা করুন। একটি গুড মর্নিং রুটিন আপনার জীবনকে আরও ভালোভাবে বদলে দিতে পারে- শুধু শারীরিকভাবে নয়, মানসিক, আবেগগত এবং আধ্যাত্মিকভাবেও।

এখানে ১০টি জিনিসের একটি তালিকা রয়েছে যা আপনাকে আরও সুখী এবং স্বাস্থ্যকর জীবনযাপনের জন্য একটি অভ্যাস গড়ে তুলতে সাহায্য করে।

১. সকালে ঘুম থেকে তাড়াতাড়ি উঠা:

“শীঘ্র ঘুমানো এবং তাড়াতাড়ি উঠা, একজন মানুষকে সুস্থ, ধনী এবং জ্ঞানী করে।” আমরা সকলেই এই উদ্ধৃতিটি হৃদয় দিয়ে জানি, এমন কিছু যা আমাদের ছোটবেলা থেকেই বলা হয়েছে। এই উদ্ধৃতিটিতে এত বেশি সত্য রয়েছে যে, আমরা এটিকে উপেক্ষা করতে পারি না। প্রতিদিন একটি নির্দিষ্ট সময়ে তাড়াতাড়ি ঘুম থেকে উঠুন এবং দেখুন কীভাবে আপনি হঠাৎ অন্য সব কিছুর জন্য বেশি সময় পান।

২. ফোনকে “টাটা” বলুন:

আমরা আমাদের ফোনের উপর এতটাই নির্ভরশীল হয়ে পড়েছি যে, তারা আক্ষরিক অর্থেই শেষ এবং প্রথম জিনিস যা আমরা ঘুমাতে যাওয়ার আগে এবং ঘুম থেকে ওঠার সাথে সাথে দেখি। ঘুম থেকে ওঠার পর আপনার ফোনকে আপনার থেকে ২ ঘণ্টা দূরে রাখুন।

৩. সারাদিন নিজেকে উজ্জ্বল রাখতে এক গ্লাস গরম জল খান:

খালি পেটে এক গ্লাস গরম জল খাওয়ার চেয়ে আর কিছুই আপনাকে ভালো বোধ করতে সাহায্য করে না। আপনি যদি চান আপনি এতে অ্যালোভেরার রস যোগ করতে পারেন এবং এটি আপনার শরীরের জন্য বিস্ময়কর কাজ করতে পারে। এটি শুধুমাত্র আপনার শরীর থেকে প্রাকৃতিকভাবে টক্সিন বের করে দেবে না, হজমশক্তিও উন্নত করবে এবং আপনার ত্বককে পরিষ্কার রাখবে।

৪. আপনার নিজের বিছানা নিজেই তৈরি করুন- আমরা এটি প্রায়ই ভুলে যাই, তবে এটি আমাদের সারা দিনের জন্য নিজেকে চার্জ করতে সাহায্য করে:

এই ছোট কাজের পিছনে একটি সহজ যুক্তি আছে। এটি আপনাকে দায়িত্ব বোধ অনুভব করতে সহায়তা করে, এটি আপনাকে অনুভব করতে সহায়তা করে যে আপনি একটি কাজ সম্পন্ন করেছেন (যদিও এটি গুরুত্বহীন বলে মনে হয়) এবং আপনাকে সারাদিন ওয়াল্টজ করার ক্ষমতা দেয়।

৫. ধ্যান:

আপনার মনের শুধুমাত্র আপনাকেই প্রয়োজন। ১৫ মিনিটের মননশীল মধ্যস্থতা বা একটি মন্ত্র জপ আপনার মনকে শান্ত করতে সাহায্য করবে এবং পুরো দিনটিকে খুব হালকা করে তুলবে।

৬. আপনি ঠিক কী জন্য কৃতজ্ঞ তা লিখুন:

এটি এমন একটি অনুশীলন যা আপনাকে আরও কৃতজ্ঞতা প্রদর্শন করতে এবং আপনার যা আছে তার জন্য কৃতজ্ঞ হতে সাহায্য করে। মনস্তাত্ত্বিকভাবে এটি একটি বিশাল আত্মবিশ্বাস – বুস্টার।

৭. নিজেকে রোদে রাখুন:

ভিটামিন D-এর দৈনিক ডোজ পাওয়া খুবই গুরুত্বপূর্ণ এবং রোদে কাটানো কয়েক মিনিট সত্যিই আপনাকে এটি করতে সাহায্য করতে পারে। এটি আপনাকে খুব সতেজ বোধ করাবে।

৮. একটি স্বাস্থ্যকর প্রাতঃরাশ খান: 

আমরা সবাই জানি যে, সকালের প্রাতঃরাশ হল দিনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ খাবার। সুতরাং আপনি আপনার সকালের প্রাতঃরাশে প্রচুর প্রোটিন, ফাইবার এবং শস্য যোগ করুন।

৯. আপনার দিন পরিকল্পনা:

আপনার দিনের জন্য ছোট ছোট লক্ষ্য তৈরি করে স্থির করুন এবং আপনাকে যে সমস্ত কাজ করতে হবে তার তালিকা তৈরি করুন। এটি আপনাকে ভারপ্রাপ্ত বোধ করতে এবং সারা দিন স্বাচ্ছন্দ্যে কাজ করতে সহায়তা করবে।

১০. ঘুম ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ:

এটি সত্যিই একটি সকালের অভ্যাস নয়, তবে এমন কিছু যা আপনার সকালের দিকে নিয়ে যায়। আপনার শরীরকে সচল রাখার জন্য আপনি পর্যাপ্ত বিশ্রামের ঘুম পাচ্ছেন তা নিশ্চিত করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। তাড়াতাড়ি ঘুমাতে যান এবং প্রতিদিন ন্যূনতম ৬-৮ ঘন্টা ঘুমান।

সুতরাং বলা যায় যে, আমরা যেভাবে কাজ করি তা পরিবর্তন করার প্রচেষ্টাগুলির উপর নজর রাখা উচিত এবং কীভাবে এটি আপনার জীবনের অন্য সব কিছুকে পরিবর্তন করে সেটিও খতিয়ে দেখা উচিত।

Sanjana Chakraborty

My name is Sanjana Chakraborty. I'm a content writer. Writing is my passion. I studied literature, so I love writing.

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button