স্বাস্থ্য

স্বাস্থ্য উপকারিতা থেকে শুরু করে ত্বক ও চুলের যত্নে ভাতের ফ্যান আপনাকে আশ্চর্যজনক ভাবে সাহায্য করে।

নিচে এক নজরে দেখে নেওয়া যাক, ভাতের ফ্যান সম্পর্কিত উপকারিতাগুলি:

একটি উজ্জ্বল, পরিষ্কার এবং মসৃণ ত্বক পেতে এখন বাজারে প্রচুর পণ্য রয়েছে যা আপনাকে এই গ্যারান্টি দেয়। কিন্তু এই পণ্যগুলি আপনার পকেটও ফাঁকা করে দেয়। কিন্তু আপনার খাবারের মধ্যে যে এই সমাধানের উৎস লুকিয়ে আছে তা বলাই বাহুল্য।

আপনি ন্যূনতম খরচে আপনার খাদ্যতালিকায় সেই খাবারটি যোগ করতে পারেন। আর এই খাবার হল আমাদের সবার প্রিয় খাদ্য ভাত।

এশিয়া মহাদেশের একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ প্রধান খাদ্য হল ভাত। আমরা সবাই সাধারণত রান্না করার সময় এই জলটি ফেলে দেই। কিন্তু মূলত, এটি আমাদের অসংখ্য স্বাস্থ্যজনিত রোগ নির্মূল করতে, ত্বক এবং চুলের সমস্যার সমাধান করতে বিশেষ ভূমিকা নেয়।

এই জলটি গরম হলে পানীয় হিসেবে গ্রহণ করা যেতে পারে। এটি ঠান্ডা হয়ে গেলে মুখ বা চুল ধুয়ে ফেলতেও ব্যবহার করা যেতে পারে।

চলুন এক নজরে দেখে নেওয়া যাক, চালের জলের উপকারিতাগুলি:

ত্বকের উপকারিতা :

১. বার্ধক্যজনিত রোগের গোপন সমাধান :

ভাতের ফ্যানে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, অ্যামিনো অ্যাসিড এবং খনিজ উপাদান রয়েছে যা ত্বকের বার্ধক্য প্রক্রিয়াকে ধীর বা কমাতে পারে।

২. উজ্জ্বল ও মসৃণ ত্বক :

ত্বকের যাবতীয় রোগের সমাধান করতে এবং ত্বককে উজ্জ্বল, মসৃণ এবং সুস্থ রাখতে সাহায্য করে।

৩. রোদে পোড়া ভাব ও জ্বালা নির্মূল করতে :

রোদের তাপে ক্ষতি হওয়া যেমন রোদে পোড়া, চুলকানি এবং লালভাব দূর করার জন্য এই জল প্রয়োগ করা যেতে পারে। ফলে ত্বকে কিছুটা আরাম অনুভূত হয়।

৪. ত্বকের তৈলাক্ততা দূর করতে :

আপনার যদি তৈলাক্ত ত্বক হয় তবে এটি আপনার জন্য বিশেষ উপকারী। এর অ্যাস্ট্রিনজেন্ট প্রভাব ত্বককে ব্রণ, পিম্পল থেকে রক্ষা করতে এবং তৈলাক্ততাকে হ্রাস করতেও সাহায্য করে।

৫. চুলের যত্ন :

•চুল বিকল করে।

•চকচকে ভাব বাড়ায়।

•চুল মসৃণ করে।

•চুল লম্বা হতে সাহায্য করে।

•চুল মজবুত করে।

৬. স্বাস্থ্য উপকারিতা :

ক. শরীরের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে :

গ্রীষ্মের দাবদাহ থেকে বাঁচতে এটি হতে পারে আপনার সমাধান। এটি আপনার শরীরের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ করার জন্য একটি খুব কার্যকর প্রতিকার প্রমাণ হতে পারে।

খ. শক্তির মহান উৎস :

আপনি যদি ভাত দিয়ে আপনার দিন শুরু করেন তাহলে অত্যন্ত উপকারী হবে, কারণ এতে প্রচুর পরিমাণে কার্বোহাইড্রেট রয়েছে। আপনার শরীর সহজেই এই খাদ্য থেকে সমস্ত শক্তি শোষণ করতে পারে ফলে আপনি সারাদিন সতেজ থাকবেন।

গ. কোষ্ঠকাঠিন্যের চিকিৎসা :

ফাইবার সমৃদ্ধ হওয়ায় এই জলটি পরিপাকতন্ত্রকে সচল রাখে। এর পুষ্টিগত উপাদানগুলি কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে সাহায্য করে।

ঘ. মন ও শরীরকে শিথিল করে :

এটি আপনার স্নানের জলের সাথে কেবল কিছুটা যোগ করুন এবং আপনার শরীরকে কয়েক মিনিটের জন্য ভিজিয়ে রাখুন। এই থেরাপি আপনার মন এবং শরীরের জন্য আরামদায়ক।

এই জলটি প্রস্তুত করার পদ্ধতি :

•প্রথমে ৩ টেবিল চামচ চাল নিন এবং জল দিয়ে ভালভাবে ধুয়ে ফেলুন।

•তারপর ২ কাপ জলে ফুটিয়ে নিন। এটি ২০-৩০ মিনিটের জন্য ফুটতে দিন।

দ্রষ্টব্য: এতে লবণ এবং মাখন যোগ করবেন না।

•জলটি দুধের মতো সাদা হতে শুরু করলে ছেঁকে নিন।

•গরম অবস্থায় পান করুন।

•আপনি এটি একটি স্প্রে বোতলে সংরক্ষণ করতে পারেন এবং এটি টোনার হিসাবে ব্যবহার করতে পারেন। প্রয়োগ করার আগে আপনার মুখ পরিষ্কার করতে ভুলবেন না।

•চুলের যত্নের জন্য, এটি কন্ডিশনার এবং শ্যাম্পু করার পরে ব্যবহার করা যেতে পারে। এটি মাথার ত্বকে লাগানোর চেষ্টা করুন এবং ধুয়ে ফেলার আগে ৫-৬ মিনিট রেখে দিন। আপনি ভাল ফলাফলের জন্য প্রতি সপ্তাহে একবার বা দুবার এই কার্যকলাপটি পুনরাবৃত্তি করতে পারেন।

কিছু মানুষ ৩০ মিনিটের জন্য জলে চালগুলি ভিজিয়ে রাখতে পছন্দ করতে পারে। তবে এটি বিশ্বাস করা হয় যে, এটি সিদ্ধ করে সর্বাধিক উপকার পাওয়া যায়।

আপনি যদি প্রতিদিন ২০০০ ক্যালোরি পান, ৯০০ থেকে ১৩oo ক্যালোরি কার্বোহাইড্রেট থেকে হওয়া উচিত। প্রতিবার যখন আপনার এটির প্রয়োজন হয় তখন তাজা প্রস্তুত করাই ভালো।

 

 

Sanjana Chakraborty

My name is Sanjana Chakraborty. I'm a content writer. Writing is my passion. I studied literature, so I love writing.

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button