বাংলা সংবাদ

ফের পাহাড়ে বনধ! মাধ্যমিক পরীক্ষা শুরুর দিনেই ১২ ঘন্টার পাহাড়ে বনধের ডাক দিয়েছে গোর্খাল্যান্ড সমর্থনকারীরা

১২ ঘন্টা পাহাড় বনধের ফলে ভোগান্তির আশঙ্কায় মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীরা

আগামীকাল থেকে শুরু হতে চলেছে রাজ্যের মাধ্যমিক পরীক্ষা। এটিই হল শিক্ষা জীবনের সবচেয়ে বড়ো পরীক্ষা। আর এই দিনেই ১২ ঘন্টার জন্য পাহাড়ে বনধের ডাক দিয়েছে গোর্খাল্যান্ড সমর্থনকারীরা। ফলে মাধ্যমিকের শুরুর দিনে এই বনধের ডাকে শোরগোল পড়ে গিয়েছে উত্তরবঙ্গের রাজনৈতিক মহলে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বনধ নিয়ে গতকালই শিলিগুড়িতে রাজ্যের কড়া অবস্থান স্পষ্ট করেছেন। প্রশাসনিক কর্তাদের কড়া পদক্ষেপ নেওয়ার নির্দেশও দিয়েছেন। জনজীবন স্বাভাবিক রাখার আহ্বান জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী স্বয়ং। কেন না কাল থেকেই শুরু হচ্ছে মাধ্যমিক পরীক্ষা। বিশেষ করে মাধ্যমিক শুরুর দিনে এই বনধের ডাক দেওয়ার সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করছে সব রাজনৈতিক দলগুলিই। পরীক্ষার মরসুমে বনধ ডাকায় কিছুটা অস্বস্তিতে আন্দোলনকারীরাও। যদিও বিনয় তামাং জানান, পরীক্ষার্থীদের কেন্দ্রে যেতে কোনও অসুবিধে হবে না। বনধের আওতার বাইরে থাকছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, জরুরি পরিষেবা। স্কুল বাস স্বাভাবিক ছন্দেই চলবে। রাস্তাঘাটে কোনও বনধ সমর্থক থাকবেন না। এ ব্যাপারে পর্ষদ সভাপতির সঙ্গে কথা হয়েছে বলে জানিয়েছেন আন্দোলনকারীদের নেতা বিনয় তামাং। পর্ষদ সভাপতি বলেন, শুধু ছাত্রছাত্রী নয় শিক্ষক ও অন্যান্য সংশ্লিষ্ঠ ব্যক্তিদের যাতায়াত সুগম করা প্রয়োজন। দার্জিলিং পাহাড় থেকে এবার ৯০০০ ছাত্রছাত্রী মাধ্যমিক পরীক্ষায় বসবে।

উল্লেখ্য, গতকালই রাজ্য বিধানসভায় পাশ হয়েছে বঙ্গভঙ্গ বিরোধী প্রস্তাব। বিধানসভায় সেই প্রস্তাব পাশের প্রতিবাদেই বিনয় তামাং-এর গোষ্ঠী পাহাড়ে ১২ ঘণ্টার বনধের ডাক দিল। যদিও বিনয় তামাং আশ্বস্ত করেছেন, এক্ষেত্রে পরীক্ষার্থীদের কোনও সমস্যা হবে না। তবে আগামীকাল ফেব্রুয়ারি পাহাড়ে বনধের ডাকের ফলে অশান্তির পরিস্থিতি তৈরি হতে পারে বলে মনে করছেন অনেকে। বিনয় তামাং-এর বক্তব্য, বিধানসভায় বলা হয়েছে পাহাড় আলাদা হবে না। তারই প্রতিবাদে এই সিদ্ধান্ত বলে জানাচ্ছেন তিনি। জিটিএ-র নির্বাচিত ৯ জনপ্রতিনিধি চব্বিশ ঘণ্টার জন্য অনশনে বসেছেন। এর পাশাপাশি ২৩শে ফেব্রুয়ারি পাহাড় বনধের ডাক দেওয়া হয়েছে। সকাল ৬টা থেকে সন্ধে ৬টা পর্যন্ত ১২ ঘণ্টার বনধ ডাকা হয়েছে। তিনি বলেছেন, যেসব পাহাড়বাসী বাংলা থেকে পাহাড়কে আলাদা করার দাবিকে সমর্থন করেন, তারা যেন এই বনধের পাশে থাকেন। ওদিকে সরকারের পদক্ষেপের প্রতিবাদে মঙ্গলবার থেকে ভানুভবনে অনশনে বসেছেন জিটিএ-র সদস্যরা। বিনয় তামাং জানিয়েছেন, বনধে কোথাও পিকেটিং হবে না।

আবার গত পরশু বিধানসভায় আদিবাসীদের বহিরাগত ও গোর্খাদের অনুপ্রবেশকারী বলে মন্তব্য করেন মন্ত্রী শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়। তাঁর এই মন্তব্য প্রত্যাহারের দাবিতে বিধানসভা কক্ষের বাইরে বিক্ষোভ দেখান বিজেপি বিধায়করা। শিলিগুড়ির বিধায়ক শংকর ঘোষ বলেন, “মন্ত্রী কোন বই থেকে এই ইতিহাস পড়েছেন তা বলতে পারেননি। এই মন্তব্য আদিবাসী ও গোর্খাদের জন্য অবমাননাকর। আমরা অবিলম্বে এই মন্তব্য প্রত্যাহারের দাবি জানাচ্ছি। না হলে বৃহত্তর আন্দোলনে নামব।” কিন্তু বিনয় তামাংদের এই বনধকে সমর্থন করছেন না তিনিও।

এই প্রসঙ্গে উত্তরবঙ্গের তৃণমূল নেতা রবীন্দ্রনাথ ঘোষ বলেন, “বিনয়-গুরুংদের বিজেপি মাঝে মাঝে উস্কানি দিচ্ছে। পাহাড়ের লোকসভা আসন থেকে পর পর বিজেপি আলাদা রাজ্য করে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে ভোট নিয়েছে।”

এদিকে মুখ্যমন্ত্রীর কড়া হুঁশিয়ারির পরেও অনশন চালিয়ে যাচ্ছেন বিনয় তামাং, অজয় এডওয়ার্ডেরা। প্রশাসনিক কর্তাদের আবেদনেও নিজেদের সিদ্ধান্তে অনড় জিটিএ-র বিরোধীরা। পুলিশ ও প্রশাসনিক আধিকারিকরা অনশন প্রত্যাহারের আবেদন করলেও তা প্রত্যাখ্যান করেছেন বিনয় তামাংরা। ২৪ ঘণ্টার অনশন চালিয়ে যাচ্ছেন তারা। আজ দুপুর ১২টা ১৫ মিনিট পর্যন্ত চলবে এই অনশন।

২৪ ঘণ্টার অনশন চালিয়ে যাচ্ছেন জিটিএর ৯ বিরোধী সভাসদ। আজ দুপুর ১২টা ১৫ মিনিট পর্যন্ত চলবে এই অনশন। ২০১৭ সালের সেপ্টেম্বরের পর পাহাড় বনধ দেখেননি স্থানীয়রা। আর সেই সময় পাহাড়ে হিংসার রাজনীতি, বনধের বিরোধিতা করেই বিমল গুরুংয়ের সঙ্গ ছেড়ে অনীত থাপাকে সঙ্গে নিয়ে আলাদা দল গড়েন বিনয়। ৬ বছরের মাথায় সেই বিনয়ের মুখেই বনধের ঘোষণা। জিটিএর চিফ এগজিকিউটিভ অনীত থাপা এই বনধকে সমর্থন করছেন না।

Sanjana Chakraborty

My name is Sanjana Chakraborty. I'm a content writer. Writing is my passion. I studied literature, so I love writing.

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button