জীবনধারা

নতুন বছরের সাথে সাথে আসতে চলেছে ওমিক্রনের নতুন ভেরিয়েন্ট BF.7! এই ৫ রকম খাবার করোনার ঢেউ রুখতে যথেষ্ট ভূমিকা নেয়

করোনা ভাইরাস যেন পিছু ছাড়চ্ছেই না!

চিনে ওমিক্রনের নতুন ভেরিয়েন্ট BF.7 হু হু করে বেড়ে চলেছে। হাহাকার পড়ে গেছে গেছে সমগ্র চিন জুড়ে। ইতিমধ্যেই অসংখ্য মানুষ আক্রান্ত ওমিক্রনের নতুন ভেরিয়েন্ট BF.7-এ। আমাদের দেশেও নতুন ভেরিয়েন্ট BF.7-এর খোঁজ মিলেছে। পশ্চিমবঙ্গতেও দু-একটি ওমিক্রনের নতুন ভেরিয়েন্ট BF.7 আক্রান্ত রোগীর খোঁজ মিলেছে। তারা প্রত্যেকেই বিদেশ থেকে দেশে ফিরেছেন।

হু হু করে বেড়ে চলেছে করোনার নতুন ভেরিয়েন্ট। এখন এসেছে ওমিক্রন BF.7। এই ভাইরাস মানুষকে অনেকরকম জটিল সমস্যায় ফেলছে। খুব দ্রুত একজন থেকে অন্যজনে ছড়াচ্ছে এই ভাইরাস।

করোনা একটি ভয়াবহ ভাইরাসঘটিত রোগ। এই ভাইরাস বার বার রূপ পরিবর্তন করে চলেছে। এই কারণেই যত সমস্যা। এই পরিস্থিতিতে সতর্ক হওয়ার চেষ্টা আপনাকে করতে হবে।

পুষ্টিবিদরা কিছু খাদ্যতালিকার পরামর্শ দিয়েছেন, এই তালিকা অবলম্বন করলে আপনি করোনা মোকাবিলা করতে পারবেন।

১. ডিম খেতে হবে:

পুষ্টিবিদরা বলেন যে, আমাদের শরীরে প্রোটিন পর্যাপ্ত পরিমাণে থাকলে রোগের সঙ্গে লড়াই করা সম্ভব। এবার যে কোনও ধরনের প্রোটিনের মধ্যে আপনি খেতে পারেন ডিম। আসলে ডিমে রয়েছে প্রথম শ্রেণির প্রোটিন। ডিম হল শরীর সুস্থ রাখার কাজে দারুণ কার্যকরী। তাই প্রতিদিন একটি করে ডিম খান এবং শীতকালে একের বেশিও ডিম খেতে পারেন। এতে প্রোটিন তো পাবেনই পাশাপাশি অন্যান্য জরুরি খনিজও মিলবে। করোনা ভাইরাস মোকাবিলায় ডিম কার্যকরী ভূমিকা নেয়।

২. যে কোনও ধরনের লেবু:

এখন লেবু বাজারে মিলছে খুব কম দামে। আপনি লেবু খেতেই পারেন। লেবুতে রয়েছে অনেকটা পরিমাণে ভিটামিন C। এই ভিটামিন রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বহুগুন বাড়ায়। এছাড়া মনে রাখতে হবে যে, লেবুতে আছে প্রচুর পরিমানে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। এই উপাদান নানা ক্ষতিকর উপাদানের সঙ্গে লড়তে সাহায্য করে। এমনকী কোভিড মোকাবিলাতেও সাহায্য করে। তাই কমলালেবু , মোসাম্বি লেবু, পাতিলেবু ইত্যাদি বেশি করে খান। আবার এইসব লেবুগুলি ইমিউনিটি পাওয়ার বাড়াতেও সাহায্য করে।

৩. বিভিন্ন রঙিন সবজি:

সুস্থ থাকতে আমাদের খেতে হবে বেশি পরিমানে রঙিন সবজি। এই সবজিগুলিতে রয়েছে ভিটামিন ও খনিজের ভাণ্ডার। এই ভিটামিন ও খনিজ দেহের জন্য ভীষণ প্রয়োজন। এছাড়াও নানা ধরনের অ্যান্টিঅক্সিডেন্টে ভরপুর এই সবজিগুলি। ফলে রোগ প্রতিরোধে সাহায্য করে। এছাড়া মাথায় রাখতে হবে যে, এতে আছে প্রচুর পরিমানে ফাইবার। সেই ফাইবার কিন্তু দেহের জন্য ভালো একটি উপাদান। তাই বলা যায় যে, বেশি করে টাটকা সবজি খান এবং সুস্থ থাকুন।

৪. দই এবং ছানা:

অনেকে দুগ্ধজাত খাবার খেতে খুবই পছন্দ করেন। তাদের জন্য দই ও ছানা দারুণ বিকল্প হতে পারে। আসলে এই খাবারে রয়েছে ভালো পরিমাণে ভিটমিন ও ক্যালশিয়াম। শরীরে এই দুই উপাদান খুবই জরুরি। এছাড়া দইতে রয়েছে প্রোবায়োটিক। এটি খুবই ভালো একটি ব্যাকটেরিয়া। অন্ত্রে এই ব্যাকটেরিয়া বাড়লে শরীর ভালো থাকে এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে। এই খাবারগুলি করোনা মোকাবিলাতেও যথেষ্ট ভূমিকা নেয়।

৫. প্রচুর পরিমানে জল পান:

করোনার মতো ভয়াবহ রোগ থেকে দ্রুত সুস্থ হতে চাইলে পান করতে হবে পর্যাপ্ত পরিমাণে বিশুদ্ধ জল। শরীরে জলের ঘাটতি হলেই মুশকিল। আপনি ORS-ও পান করতে পারেন। এই জল শরীরে ইলেকট্রোলাইটসের সমস্যা কমায়। তাই চিন্তার কোনও কারণ নেই বললেই চলে। তাই প্রচুর পরিমানে জল পান করার চেষ্টা করুন। এভাবেই করোনা ভাইরাস থেকে রক্ষা পেতে পারেন।

Corona Diet: The wave of Covid is coming! Nutritionist said that you will recover quickly from corona in 5 meals

Sanjana Chakraborty

My name is Sanjana Chakraborty. I'm a content writer. Writing is my passion. I studied literature, so I love writing.

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button