জীবনধারা

জৈন ধর্ম এবং খাদ্য: জৈন ধর্মের খাদ্যতালিকা অনুসরণ করার স্বাস্থ্য উপকারিতাগুলি হল

কীভাবে জৈন ধর্মের খাদ্যতালিকা আপনাকে স্বাস্থ্যকর করতে পারে?

জৈন ধর্ম একটি প্রাচীন ভারতীয় ধর্ম যা বহু শতাব্দী ধরে চলে আসছে। এটি বেশিরভাগই দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলিতে অনুসরণ করা হয়। ভারতেও জৈন ধর্মের অনুসারী লোকদের একটি বিশাল জনসংখ্যা রয়েছে। তারা ২৪জন তীর্থঙ্করে বিশ্বাস করে, যার মধ্যে প্রথম হলেন ঋষভনাথ, যিনি লক্ষ লক্ষ বছর আগে বেঁচে ছিলেন। তারা তাদের কঠোর নিয়মের জন্য পরিচিত, বিশেষ করে যখন এটি খাদ্যাভ্যাসের ক্ষেত্রে আসে। ২৪তম তীর্থঙ্কর মহাবীর জৈন সবচেয়ে পরিচিত এবং জনপ্রিয় ব্যক্তিত্ব।

জৈন ধর্মের উত্থানের কারণ:

ভারত যখন ধর্মীয় অস্থিরতার মধ্য দিয়ে যাচ্ছিল তখন খ্রিস্টপূর্ব ৬ষ্ঠ শতাব্দীতে জৈন ও বৌদ্ধ ধর্মের উদ্ভব হয়েছিল। পরবর্তী বৈদিক যুগের আচার-অনুষ্ঠানগুলি সাধারণ মানুষের মধ্যে জনপ্রিয়তা দেখতে পায়নি এবং প্রায়শই খুব ব্যয়বহুল ছিল। হিন্দুধর্মের অনমনীয় বর্ণপ্রথাকেও এই দুই ধর্মের উদ্ভবের কারণ হিসেবে দেখা হয়।

জৈন ধর্মের মূলনীতি:

জৈন ধর্মের মৌলিক তিনটি নীতি, যা ত্রিরত্ন নামেও পরিচিত-

• সঠিক বিশ্বাস

• সঠিক জ্ঞান

• সঠিক আচরণ – জৈন ধর্ম বিশ্বাস করে যে, প্রতিটি বস্তুর একটি আত্মা আছে। সৎ আচরণের মধ্যে রয়েছে পাঁচটি ব্রত পালন-

১. জীবন আঘাত না

২. মিথ্যা না বলা

৩. চুরি না করা

৪. সম্পত্তি অর্জন না করা

৫. অনৈতিক জীবনযাপন না করা

জৈন ধর্মের এই নীতিগুলি থেকেই এর অনুগামীদের জীবনযাত্রার প্রণালী গড়ে উঠেছে। জীবনযাত্রার পদ্ধতিও আলোচনার বিষয় হয়ে উঠেছে এবং এই সম্প্রদায়ের স্বাস্থ্য বোঝার জন্য ডাক্তারদের দ্বারা গবেষণা করা হয়েছে।

জৈন ধর্মের অনুসারীরা তাদের খাদ্য এবং জীবনযাত্রার ক্ষেত্রে কিছু কঠোর নিয়ম মেনে চলে। এখানে কয়েকটি অভ্যাস রয়েছে যা আমরা আমাদের দৈনন্দিন জীবনে অন্তর্ভুক্ত করতে পারি এবং দেখতে পারি যে, এটি কীভাবে আমাদের স্বাস্থ্যের পরিবর্তন করে। আসুন দেখে নেওয়া যাক কীভাবে জৈন ডায়েট আপনাকে স্বাস্থ্যকর করে তুলতে পারে?

১. নিরামিষ আহার – যেহেতু তারা অহিংসায় বিশ্বাসী, তাই আমিষ খাবার খাওয়া জৈনদের বিকল্পের বাইরে। নিরামিষ খাবার প্রকৃতির অনেক কাছাকাছি এবং আমাদের শরীর দ্বারা আরও সহজে শোষিত হয়। যারা জৈন ধর্মকে কঠোরভাবে অনুসরণ করে তারা আলু, পেঁয়াজ, শাকসবজি খায় না কারণ তারা বিশ্বাস করে যে, শাকসবজির ব্যবহার গাছপালাকে মেরে ফেলে এবং তাই এটি এক ধরনের হিংসতা। সবজি বা ফল উপড়ে ফেলার পরেও স্থলজ উদ্ভিদ বেঁচে থাকে।

ফলস্বরূপ, জৈনরা প্রচুর মসুর ডাল খায়, যেটির প্রোটিন খুব বেশি এবং আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য খুব উপকারী।

২. অ্যালকোহলহীন – তারা বিয়ার, ওয়াইন এবং অন্যান্য অ্যালকোহলের মতো গাঁজনযুক্ত পণ্যগুলি এড়িয়ে চলেন কারণ এটি গাঁজন প্রক্রিয়ার সাথে জড়িত বিভিন্ন অণুজীবকে হত্যা করে।

৩. উষ্ণ জল পান করুন – ঐতিহ্যগতভাবে জৈনরা কখনই অপরিশোধিত জল পান করেননি। জল ফোটানো তার বিশুদ্ধতা নিশ্চিত করার এবং স্বাস্থ্য সুবিধা প্রদানের একটি উপায়।

৪. সূর্যাস্তের পরে খাওয়া নয় – অণুজীব হত্যা এড়াতে তারা সূর্যাস্তের পরে খাবার খায় না। এই অভ্যাসের বিভিন্ন স্বাস্থ্য উপকারিতা রয়েছে, কারণ এটি আমাদের খাবারকে আরও ভালোভাবে হজম করতে এবং আমাদের ফিট রাখতে সাহায্য করে।

৫. হাঁটাচলা – জৈন সন্ন্যাসীরা যানবাহন ব্যবহার করেন না এবং হাঁটা পছন্দ করেন। এটি তাদের সক্রিয় এবং উদ্যমী হতে সাহায্য করে। বেশিরভাগ সন্ন্যাসী পায়ে জুতো পরেন না এবং খালি পায়ে হাঁটেন, যাতে তারা কোনও পোকামাকড় বা ক্ষুদ্র প্রাণীকে আঘাত না করে।

৬. উপবাস – উপবাস এই সম্প্রদায়ের একটি খুব সাধারণ অভ্যাস। তারা প্রায়ই উৎসব এবং পবিত্র দিনগুলিতে উপবাস রাখেন। সবচেয়ে জনপ্রিয় উৎসব হল পর্যুষণ। দিগম্বররা এটিকে দাস লক্ষণ বলে উল্লেখ করেন এবং তারা ১০ দিন উপবাস রাখেন। শ্বেতাম্বররা একে পর্যুষণ বলে উল্লেখ করে এবং ৮ দিন উপবাস রাখেন। উপবাসের মহান স্বাস্থ্য উপকারিতা রয়েছে, কারণ এটি আমাদের পাচনতন্ত্রকে কিছুটা বিরতি দেয় এবং এর পাশাপাশি প্রাকৃতিকভাবে আমাদের পাচনতন্ত্রকে পরিষ্কারও রাখে। আপনি এই অভ্যাসগুলির কিছু অনুসরণ করার চেষ্টা করতে পারেন এবং দেখতে পারেন যে, কীভাবে সেগুলি আপনার স্বাস্থ্যকর জীবনধারার একটি অংশ হয়ে ওঠে এবং আপনার স্বাস্থ্যকে রূপান্তরিত করে।

Sanjana Chakraborty

My name is Sanjana Chakraborty. I'm a content writer. Writing is my passion. I studied literature, so I love writing.

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button