জীবনধারা

ছট পুজোর তাৎপর্য ও ইতিহাস সম্পর্কে বিস্তারিত জানুন!

ছট পুজো হিন্দু বর্ষপঞ্জীর কার্তিক মাসের শুক্লপক্ষের ষষ্ঠী তিথিতে উদযাপিত একটি প্রাচীন হিন্দু পার্বণ।

বাঙালির বারো মাসে তেরো পার্বণ, প্রতিটি মুহূর্তে উৎসবের আমেজ লেগেই রয়েছে। আর সমস্ত উৎসব ও পুজো-পার্বন অনুষ্ঠানের পাশাপাশি হিন্দু ধর্ম অনুসারে ছট পুজো হলো মূলত সূর্যদেবের পুজো। দীপাবলি শেষ হওয়ার পর আরও একটি বড়ো উৎসব হল হিন্দুদের ছট পুজো। এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ হিন্দু উৎসব যা প্রধানত বিহার এবং নেপালের কিছু অঞ্চলে পালিত হয়। এটিই সবচেয়ে কঠিন পুজো বলে মানুষ মনে করে। পুজোটি সূর্যদেবতা এবং তার স্ত্রী ঊষার পুজোর জন্য উৎসর্গীকৃত। এই অনুষ্ঠানে ভক্তরা ঈশ্বরকে ধন্যবাদ জানাতে এবং ঐশ্বরিক দম্পতির আশীর্বাদ পাওয়ার জন্য পুজো করে। এই পুজোর তৃতীয় দিন হল মূল দিন। এই বছর পুজো শুরু হবে ২৮শে অক্টোবর, ২০২২ তারিখে।

এই পুজো একটি উৎসবের চেয়ে কম নয় এবং এটি ব্যাপকভাবে পালিত হয়। হিন্দু ধর্ম অনুসারে, সূর্য অনেক গুরুতর স্বাস্থ্যের অবস্থা নিরাময় করে এবং দীর্ঘায়ু, সমৃদ্ধি, অগ্রগতি এবং মঙ্গল নিশ্চিত করে বলে বিশ্বাস করা হয়। আমাদের হিন্দু সংস্কৃতিতে সূর্যদেবতার পুজো করা হয়। ভক্তরা এই চার দিন স্থায়ী একটি কঠোর রুটিন অনুসরণ করে এই উৎসবটি উদযাপন করে। আচারগুলির মধ্যে রয়েছে উপবাস, পবিত্র স্নান, উদয় ও অস্তগামী সূর্যের প্রার্থনা এবং জলে দাঁড়িয়ে ধ্যান করা।

বিহার ছাড়াও, ঝাড়খণ্ড, পশ্চিমবঙ্গ, উত্তরপ্রদেশ, নেপালের কিছু অঞ্চল, মধ্যপ্রদেশ, গুজরাট, ছত্তিশগড় প্রভৃতি রাজ্যেও এই উৎসবটি উদযাপন করা হয়। ছট পুজো বিক্রম সংবতের কার্তিক মাসের ষষ্ঠ দিনে পালিত হয়।

সমৃদ্ধ ইতিহাস যা আপনাকে অবশ্যই জানতে হবে:

এটা বিশ্বাস করা হয় যে, ছট পুজো উদযাপন প্রাচীন বেদের পূর্ববর্তী, কারণ পুজোর সময় সম্পাদিত আচার-অনুষ্ঠান ঋগ্বেদে উল্লিখিত অনুরূপ, যেখানে সূর্যদেবতার পুজো করা হয়। সেই সময়ে ঋষিরাও সূর্যের উপাসনা করতেন এবং খাদ্য গ্রহণ না করে থাকতেন কারণ তারা সরাসরি সূর্য থেকে তাদের শক্তি পেতেন। এই পুজোর আরেকটি তাৎপর্য ভগবান রামের গল্পের সাথে সংযুক্ত।

প্রাচীন গ্রন্থ অনুসারে, রাম এবং তাঁর স্ত্রী সীতা শুক্লপক্ষের কার্তিক মাসে সূর্য দেবতার উপবাস করেছিলেন এবং প্রার্থনা করেছিলেন, তারপর তারা ১৪ বছর বনবাস কাটিয়ে অযোধ্যায় ফিরে এসেছিলেন। তারপর থেকে ছট পুজো একটি তাৎপর্যপূর্ণ এবং ঐতিহ্যবাহী হিন্দু উৎসবে পরিণত হয়, যা প্রতি বছর উৎসাহ ও উদ্দীপনার সাথে পালিত হয়।

গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা:

দীপাবলি শেষ হওয়ার ঠিক পরেই এই চারদিনের উৎসবটি শুরু হয়। এভাবেই একের পর এক উৎসব পালন করেন ভক্তরা।

যেহেতু ছট পুজো চারটি দিন হিসাবে ভাগ করা হয়েছে, সেক্ষেত্রে চলুন এই চার দিনের ছট পুজো সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক :

প্রথম দিন: এই পূজার প্রথম দিন মানে হল চতুর্দশীর দিন। যারা ব্রত পালন করবেন, তারা শুদ্ধ কাপড় পরে ছট পুজোর জন্য ব্রতী হবেন এবং সেই দিন লবণ ছাড়াই ছোলার ডাল, মিষ্টি কুমড়ো দিয়ে ভাত রান্না করে পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের সঙ্গে প্রসাদ হিসেবে গ্রহণ করতে হবে।

দ্বিতীয় দিন: ছট পুজোর দ্বিতীয় দিন হল পঞ্চমীর দিন, যেটা খরনা ব্রত পালন করার দিন। এই দিন থেকে ছট পুজোর একেবারে নির্জলা উপবাস ছত্রিশ (৩৬) ঘন্টার জন্য রাখা শুরু হয়। এই দিন ছট ব্রত পালনকারী মহিলারা কাঠের আগুনে মাটির উনুনে গুড়ের পায়েস রান্না করে খেয়ে, পরে ঠেকুয়া, নাড়ু ইত্যাদি প্রসাদ তৈরি করেন।

তৃতীয় দিন: ছট পুজোর তৃতীয় দিন হল ষষ্ঠীর দিন। এই দিনে ছট পুজোর ব্রত পালনকারী মহিলারা সূর্যাস্তের সময় ডুবতে থাকা সূর্যকে গঙ্গাঘাটে অথবা বড়ো কোনো পবিত্র জলাশয়ের ধারে গোটা আখ গাছ এবং পুজোর বিভিন্ন উপাদেও সামগ্রী নিয়ে গিয়ে সূর্যদেবের উদ্দেশ্যে অর্ঘ্য নিবেদন করে থাকেন।

চতুর্থ দিন: এই পুজোর চতুর্থ দিন মানেই তো সপ্তমীর দিন, তাই না! এই দিন সকালবেলা সূর্য উদয়ের সময় যারা ছট পুজোর জন্য ব্রত পালন করছেন, সেই সমস্ত মহিলারা তাদের পরিবারের সঙ্গে ঘাটে গিয়ে সূর্যদেবকে অর্ঘ্য নিবেদন করে ছট পুজোর উপবাস ভঙ্গ করে থাকেন।

 

 

Sanjana Chakraborty

My name is Sanjana Chakraborty. I'm a content writer. Writing is my passion. I studied literature, so I love writing.

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button