জীবনধারা

আপনি কী কিছু অফিস-টাইম স্বাস্থ্যকর জলখাবার খুঁজছেন?

এখানে স্বাস্থ্যকর অফিস-টাইম জলখাবারের সংমিশ্রণ রয়েছে যা আপনাকে তৃপ্ত করবে

আপনি কী অফিস চলাকালীন স্বাস্থ্যকর জলখাবার নিয়ে ভীষণ চিন্তিত? তাহলে চিন্তা করবেন না, এই প্রতিবেদনটির মাধ্যমে আমরা আপনাকে সাহায্য করতেই এগিয়ে এসেছি। অফিস চলাকালীন সন্ধ্যার দিকে প্রায়সই আমাদের খিদে পায় ফলে আমরা চকোলেট বা কখনও কখনও ফল খাই সন্ধ্যার জলখাবার হিসাবে।

অনেক সময় আপনারা কেউ কেউ একটি ফল যেমন ধরুন একটি আপেল নিয়ে অফিস চলে যান। কিন্তু এটি আপনার ক্ষুধা দমন করার জন্য যথেষ্ট নাও হতে পারে। তাহলে এখন আপনার কী করা উচিত? আপনি যদি একটি আপেল পিনাট বাটার বা ভাজা চিনাবাদামের সাথে খান তবে তা আপনাকে অবিলম্বে তৃপ্ত করবে।

শারীরবৃত্তীয় এবং বৈজ্ঞানিকভাবে প্রমাণিত যে, যখন আমরা দুই বা ততোধিক খাবার একত্রিত করি তখন আমাদের শরীর আরও বেশি পরিতৃপ্ত হয়।

তাই, এখানে আমরা এমন স্বাস্থ্যকর খাবারের সংমিশ্রণ নিয়ে আলোচনা করেছি যা আপনাকে তৃপ্ত করবে।

মাখনা বা পদ্মবীজ:

এই মাখনা বা পদ্মের বীজ আপনাকে পপকর্নের অনুভূতি প্রদান করে। এগুলি প্রধানত কম ক্যালোরি এবং খনিজ সমৃদ্ধ। এগুলিতে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার থাকে এবং কিছু পরিমাণে প্রোটিনও থাকে। পদ্মের বীজে সোডিয়াম খুব কম থাকে যা উচ্চ রক্তচাপ আক্রান্ত রোগীর খাবারের বিকল্প হতেই পারে।

কড়াইতে এক চিমটে লবণ দিয়ে ভাজুন। আবার আপনি কয়েক মিনিটের জন্য সিদ্ধও করতে পারেন।

আপনার অফিস-টাইম জলখাবারের গুণগত মান বাড়ানোর জন্য আপনি সেগুলিকে লবণবিহীন চিনাবাদামের সাথে একত্রিত করতে পারেন।

লাল খেজুর:

লাল খেজুর এবং খেজুর বীজগুলি চীনের জনপ্রিয় সুপারফুড যা ঐতিহ্যবাহী ওষুধ তৈরীতেও সাহায্য করে। আখরোটের সাথে মিলিত এই খাবারটি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, ফাইবার এবং স্বাস্থ্যকর চর্বি দিয়ে পরিপূর্ণ।

খেজুরের একটি ছোট পকেট তৈরি করতে খেজুরকে ছোট ছোট করে পিস করে নিন তারপর বীজটি সরান এবং খেজুরের মধ্যে একটি আখরোটের অর্ধেক অংশ যোগ করুন।

খেজুরে প্রায় ৩৬ v ক্যালোরি থাকে। ক্ষুধা নিবারণের জন্য যা বিশেষ ভূমিকা নেয়।

ওটস:

আপনি যদি একটি চকোলেটের টুকরো খেতে চান তবে এটির পরিবর্তে এক চামচ ওটস খান। কারণ এগুলি চিবানোও যতটা সোজা ঠিক তেমনই এর বাদামযুক্ত এবং মিষ্টতা ভাবও আমাদের শরীরে সাধারণত উচ্চ-চর্বিযুক্ত, উচ্চ-ক্যালোরি চকোলেটের চেয়ে স্বাস্থ্যকর প্রমাণিত হয়েছে।

আপনার যা দরকার তা হল ৩টি মৌলিক উপাদান। একটি পাত্রে ম্যাপেল সিরাপ এবং চিনাবাদামকে গলিয়ে নিন যতক্ষণ না মসৃণ হয়। এটি অতিরিক্ত গরম করবেন না। আঁচ বন্ধ করুন এবং ওটস যোগ করুন। আপনি অন্যান্য উপাদান যেমন সূর্যমুখী বীজ এবং কোকো পাউডার যোগ করতে পারেন। ভালো করে মিশিয়ে নিন এবং একটি পাত্রে রাখুন। এটি শক্ত না হওয়া পর্যন্ত এক ঘন্টা ফ্রিজে ঠাণ্ডা করুন। মাত্র একটি ওটসের টুকরো আপনাকে মাত্র ৬০ ক্যালোরি সরবরাহ করে।

সবজি যা দই-এ ডিপ করা:

কাটা শাকসবজি ঘরে তৈরি টকদই-এর ম্রিশণে ডুবিয়ে রাখতে পারেন। আবার আপনি দোকান থেকে তাজা দই-ও কিনে আনতে পারেন এই ম্রিশণটি তৈরির জন্য।

এই দই-এর মিশ্রণটি প্রস্তুত হয় :

•এক কাপ টকদই

•এক কিমা রসুনের খোয়া

•এক টেবিল চামচ তাজা লেবুর রস

•এক মুঠো কাটা তাজা পুদিনা

•আর একটু লেবুর কুচি

প্রতি টেবিল চামচে ১০ এরও কম ক্যালোরি থাকে।

মটর কুঁচি (মটর ডাল):

মটরগুলিতে ফাইবার এবং প্রোটিনের পরিমান বেশি কিন্তু চর্বির পরিমান কম। মটর দিয়ে তৈরী একটি জলখাবার নিম্নে বলা হল –

•১ কাপ মটর কমপক্ষে ৪ ঘন্টা ভিজিয়ে রাখুন।

•জল ঝরিয়ে শুকিয়ে নিন।

•মাঝারি-উচ্চ তাপে ১ টেবিল চামচ অলিভ অয়েল দিয়ে কড়াই-টি আবরণ করুন।

•মটরগুলি যোগ করুন।

•প্রায় ৭-১০ মিনিটের জন্য আঁচে রাখুন। সোনালি বাদামী এবং কুঁচকে যাওয়া পর্যন্ত ঘন ঘন নাড়ুন।

•কড়াই থেকে নামান এবং মটরগুলিকে ঠান্ডা হতে দিন।

•সামান্য মরিচের গুঁড়ো দিন এবং একটি বায়ুরোধী পাত্রে সংরক্ষণ করুন।

দই এবং ফল:

উচ্চ চিনির স্বাদযুক্ত দই কেনার পরিবর্তে, প্রাকৃতিক ফল দিয়ে আপনার নিজের তৈরি করুন একটি ম্রিশন।

•আপনার পছন্দের ফলকে ছোট ছোট করে পিস করুন।

•দই থেকে ফল আলাদা করে তাজা রাখতে এবং একটি খাবারের বক্সে আলাদা করে প্যাক করুন।

যখনই আপনি বিরক্তিকর বোধ করেন, তখন ফল এবং দই একসাথে খেয়ে ফেলুন।

ট্রায়াল মিক্স:

স্ন্যাকসের প্যাক বা জলখাবার কেনার জন্য অপ্রয়োজনীয় অর্থ ব্যয় করার পরিবর্তে, আপনি একটি ট্রায়াল মিক্স করতে পারেন।

কেবল বাদাম, বীজ এবং শুকনো ফলের সংমিশ্রণ বেছে নিন। এই সহজ এবং সস্তা বাদাম পুষ্টিগুণে ভরপুর কিন্তু এগুলো অতি ক্যালোরিযুক্ত।

যদি এই প্রতিবেদনটি পরে আপনারা উপকৃত হন তবে নিচে কমেন্ট বক্সে নিজের মন্তব্য রাখুন।

Sanjana Chakraborty

My name is Sanjana Chakraborty. I'm a content writer. Writing is my passion. I studied literature, so I love writing.

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button