জীবনধারা

আপনি আপনার সন্তানকে একটি ভালো শিক্ষা দিন, বাচ্চাদের শেখান যে অতিরিক্ত কাজ করা ভালো না।

আপনার বাচ্চাদের শেখান অতিরিক্ত পরিশ্রম করা উচিত না।

বাচ্চারা বাড়ির কাজ, পড়াশোনা, পরীক্ষা এবং পরীক্ষার উদ্বেগ, সেইসাথে স্কুল-পরবর্তী ক্রিয়াকলাপগুলির জন্য তারা অত্যন্ত চাপ অনুভব করে। এটি একটি পরিচিত সত্য যে, দীর্ঘস্থায়ী চাপ প্রাপ্তবয়স্কদের জন্য ভয়ানক, তবে এটি শিশুদের জন্য বিশেষত ক্ষতিকারক। কারণ এটি পরিশীলিত চিন্তাভাবনা এবং স্মৃতিশক্তি, মনোযোগ, শেখার এবং আচরণের সাথে দীর্ঘমেয়াদী অসুবিধা তৈরি করতে পারে। শারীরিক বা মানসিক যেকোনো ধরনের প্রতিক্রিয়াই শিশুদের বিষণ্নতায় ফেলতে পারে।

একটি জটিল পরিস্থিতির মুখোমুখি হলে, শিশুরা বিষণ্ণ হতে পারে। অতিরিক্ত পরিশ্রম করা আমাদের সংস্কৃতিতে নিহিত। আমরা প্রায়ই বিরতি নেওয়ার জন্য দোষী বোধ করি। আসলে, অতিরিক্ত কাজের ধারণা শুরু থেকেই আমাদের মনে রোপণ করা হয়।

আপনার বাচ্চারা অতিরিক্ত কাজের ফলে চাপ অনুভব করে, এমন লক্ষণগুলি হল :

১) আচরণে পরিবর্তন: যদি আপনার সন্তান ক্রমশ রাগান্বিত বা হতাশাবাদী হয়ে উঠে, নিজেদের জীবন এবং স্কুলের কাজ সম্পর্কে তবে তারা অতিরিক্ত চাপ অনুভব করে।

২) অল্প বয়সেই ঘুমের সমস্যা শুরু হয়।

৩) শিশুরা কম খাওয়া-দাওয়া করতে শুরু করে।

৪) যে শিশুরা অনিরাপদ বোধ করছে বা তাদের মনের মধ্যে গোপনাঙ্গ নিয়ে বিভিন্ন সমস্যা ডানা বাঁধছে, তবে আপনি আপনার সন্তানকে আশ্বস্ত করুন যে, আপনি তার পাশে আছেন।

৫) কখনও কখনও, বাবা-মাকে খুশি করার চাপ বাচ্চাদের পরিপূর্ণতাবাদী এবং ক্রমাগত উদ্বিগ্ন করে তোলে। আপনার সন্তানের আত্মবিশ্বাস গড়ে তুলুন যাতে সে চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে পারে এবং নিজে থেকেই সমস্যার সমাধান করতে পারে।

৬) ঘুম-সম্পর্কিত ভয় হল চাপ বা আঘাতমূলক অভিজ্ঞতার একটি সাধারণ প্রতিক্রিয়া। আপনার সন্তানকে অন্য বাচ্চাদের গল্প বলা তাদের আরও ভালো বোধ করতে সহায়তা করতে পারে। ফলে আপনার সন্তান বুঝতে পারে যে, আপনিও তাদের অনুভূতি বুঝতে পারেন।

সাধারণ মোকাবিলা :

সাধারণ মোকাবিলা কৌশলগুলি পাঁচটি বিভাগে বিভক্ত ছিল: সমস্যা সমাধান, মানসিক দমন, জ্ঞানীয় পুনর্মূল্যায়ন, বিভ্রান্তি এবং পরিহার। শিশুদের মানসিক চাপ কমাতে অভিভাবকদের অবশ্যই এই টিপসগুলি ব্যবহার করতে হবে।

১) আপনার সন্তানের কথা শোনার জন্য সময় বার করুন এবং তারা যে চাপ ও চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হচ্ছে তা আপনার সাথে শেয়ার করতে দিন। প্রথমে কোনো উপদেশ দেওয়ার দরকার নেই, শুধু শুনুন কীভাবে তারা লড়াই করে চলেছে।

২) নিজেকে এবং আপনার সন্তানকে মানসিক চাপের সাথে মোকাবিলা করার প্রথম নিয়মটি মনে করিয়ে দিন: “আপনি যেগুলি পরিবর্তন করতে পারেন তা পরিবর্তন করার চেষ্টা করুন এবং আপনি যেগুলি পরিবর্তন করতে পারবেন না তা গ্রহণ করুন।”

৩) আপনার সন্তানের সাথে উচ্চস্বরে চিন্তা করুন যে, আপনি অতীতে অনুরূপ পরিস্থিতির সাথে কীভাবে মোকাবিলা করেছেন বা আপনি যদি অতীতে একইরকম চাপের মুখোমুখি না হয়ে থাকেন তবে আপনি কীভাবে সবটা সামলেছেন।

৪) আপনার সন্তানকে একটি পরিকল্পনা করতে উৎসাহিত করুন যেটি এক বা দুই দিনের মধ্যে অনুসরণ করা যায়। যদি প্রথম পরিকল্পনাটি ব্যর্থ হয় তবে অন্য আরেকটি পরিকল্পনা চেষ্টা করুন যতক্ষণ না সমস্যাটি পরিবর্তিত হয় বা আপনার সন্তান সমস্যাটি গ্রহণ করতে এবং এটির সাথে খাপ খাইয়ে নিতে সক্ষম হয়।

৫) নিশ্চিত করুন যে, আপনার সন্তানের স্কুল ছুটির পরে খেলার সময় আছে। এটি বিশেষ করে ছোট বাচ্চাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ যারা খেলা থেকে ব্যাপকভাবে উপকৃত হয়। সংগঠিত কার্যকলাপগুলি সীমিত করুন যাতে আপনার শিশু প্রতিদিন নির্ধারিত সময়ে স্কুলের পরে খেলতে পারে। যদি তাদের প্রতি ঘন্টায় একটি কার্যকলাপ থাকে, তবে এটি খেলার সময়কে অনুমতি দেয় না।

৬) অভিভাবকদের একদমই উচিত না বাচ্চাদের একাধিক ক্রিয়াকলাপের সময়সূচী নির্ধারণ করা। কারণ সব ক্ষেত্রেই উচ্চতর পারফরম্যান্সের প্রত্যাশা থাকে। তাদের সন্তানের স্বার্থও বিবেচনা করা উচিত। যদি একটি শিশু একটি ক্রিয়াকলাপে আগ্রহী না হয়, তবে সম্ভবত তারা এটি করার জন্য চাপ অনুভব করতে পারে।

৭) পরিবারের সবাই মিলে একদিন ডিনারের আয়োজন করুন। এর ফলে আপনার সন্তানও মনে মনে আনন্দিত হবে।

৮) ঘুমানোর পনেরো মিনিট আগে, তাদের বিছানাতে পড়তে বা লিখতে উৎসাহিত করুন।

 

 

Sanjana Chakraborty

My name is Sanjana Chakraborty. I'm a content writer. Writing is my passion. I studied literature, so I love writing.

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button