জীবনধারা

আপনার দৈনন্দিন খাদ্যতালিকার অন্তর্ভুক্ত ৫টি সাশ্রয়ী মূল্যের স্বাস্থ্যকর বীজ

অনেক সময় স্বাস্থ্যকর ও পুষ্টিকর জিনিস ছোট প্যাকেজের মধ্যেই চলে আসে সুতরাং আপনার খাদ্যতালিকায় এই স্বাস্থ্যকর বীজগুলি যোগ করুন

আমরা এতটাই ব্যস্ত এবং দ্রুতগতির সাথে জীবনযাপন করি যে, প্রায়শই আমাদের শরীরের যত্ন নিতে ভুলে যাই। শরীরের প্রতি এই অবহেলার ফলে আমাদের অনেক মূল্য দিতে হয়। আজ আমরা অনেকেই ডায়াবেটিস এবং উচ্চ রক্তচাপের মতো দীর্ঘকালীন রোগে ভুগছি। রোগ প্রতিরোধ এবং আমাদের জীবনযাত্রার মানকে উন্নত করার জন্য আমাদের ছোট ছোট পদক্ষেপ নেওয়া উচিত। আমরা ৫টি সাশ্রয়ী মূল্যের স্বাস্থ্যকর বীজকে তালিকাভুক্ত করেছি যা আপনি আপনার খাদ্যতালিকার অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন। আসুন দেখে নেওয়া যাক, সেই বীজগুলি কী কী –

এই স্বাস্থ্যকর বীজগুলি আসলে কী?

বীজ থেকেই যাত্রা শুরু হয়, এই বীজগুলিই বড় হয়ে জটিল উদ্ভিদে পরিণত হয়। বীজ সাধারণত পুষ্টিতে ভরপুর থাকে এবং সেগুলি আমাদের খাদ্যতালিকার অন্তর্ভুক্ত ভিটামিন, প্রোটিন, খনিজ এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের একটি বড় উৎসের কারণ হতে পারে।

এখানে এইরকমই ৫টি বীজের একটি তালিকা রয়েছে যা আপনার জন্য স্বাস্থ্যকর এবং সাশ্রয়ী মূল্যেরও হতে পারে। এগুলিকে আপনার দৈনন্দিন খাদ্যের একটি অংশে যোগ করুন এবং দেখুন কিভাবে এইগুলি আপনার জীবনকে বদলে দেয়৷

১. কালোজিরার বীজ: এগুলি হল ফাইবার এবং ওমেগা ৩ ফ্যাটের একটি উৎস। এতে গুরুত্বপূর্ণ অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট পলিফেনলও রয়েছে। পলিফেনলগুলি হজমের সমস্যা, ওজন নিয়ন্ত্রণ, কার্ডিওভাসকুলার সমস্যাগুলির সমাধানে সহায়তা করে।

ওমেগা ৩ হল অপরিহার্য একটি ফ্যাটি অ্যাসিড (EFAs) যা আমাদের শরীর দ্বারা সংশ্লেষিত হতে পারে না, ফলে ওমেগা ৩ সমৃদ্ধ খাবার খাওয়া ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ। কালোজিরার বীজ রক্তে শর্করার মাত্রা উন্নত করতেও সাহায্য করতে পারে। এটি হৃদরোগের ঝুঁকিও কমায়।

কীভাবে কালোজিরার বীজ সেবন করবেন?

এক বোতল জলে এক চামচ কালোজিরার বীজ রেখে দিতে পারেন সারারাত। পরের দিন এই জল পান করুন এবং দেখুন এটি আপনার শরীরকে কীভাবে সাহায্য করে।

আপনি কলা, দই এবং আরও অনেক ফলের সঙ্গে কিছু কালোজিরার বীজ দিয়ে একটি স্বাস্থ্যকর মুখরোচক খাবার তৈরি করতে পারেন।

২. তেঁতুলের বীজ: তেঁতুলের বীজ হল ওমেগা ৩ এর একটি প্রধান উৎস যা শরীরে কোলেস্টেরলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করে। এটি ভালো হজমেও সাহায্য করে। আবার কোষ্ঠকাঠিন্য প্রতিরোধ করে এবং রক্তে শর্করাকে নিয়ন্ত্রণ করে। তেঁতুলের বীজ ক্ষুধা নিয়ন্ত্রনে ও ওজন নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে।

কীভাবে তেঁতুলের বীজ সেবন করবেন?

তেঁতুলের বীজকে খাওয়া যেতে পারে কিছুটা ভাজা করে। ফলে এর স্বাদ আরও ভালো হয়। আমাদের খাবারকে অতিরিক্ত সুস্বাদু এবং স্বাস্থ্যকর করতে খাবারের সাথে এটি যোগ করা যেতে পারে।

৩. কিনোয়া: কিনোয়া একটি চর্বিজাতীয় শস্য যা সম্পূর্ণরূপে গ্লুটেন-মুক্ত। গ্লুটেন-মুক্ত হওয়ার কারণে, এটি আজকাল অত্যন্ত জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। কিনোয়া প্রোটিন এবং উচ্চ ফাইবারের একটি প্রধান উৎস। এটি কোষ্ঠকাঠিন্য, উচ্চ কোলেস্টেরল এবং উচ্চ রক্তচাপের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে। এটি ম্যাঙ্গানিজ সরবরাহ করতেও সহায়তা করে যা বিকাশ এবং বিপাকের উন্নতির জন্য প্রয়োজনীয়। কিনোয়া আয়রন সমৃদ্ধ এবং এটি আমাদের রক্তে হিমোগ্লোবিনে সাহায্য করে।

কীভাবে কিনোয়া সেবন করবেন?

কিনোয়া সম্পর্কে সবচেয়ে আশ্চর্যজনক জিনিস হল এটি একাধিক উপায়ে খাওয়া যায়। এটা সাধারণত কাঁচা ও রান্না করেও খাওয়া যায়। আপনি এটিকে পিষে সূক্ষ্ম পাউডারের আকারে তৈরি করে নিতে পারেন। তারপরে রুটি হিসাবে খাওয়ার জন্য ময়দা তৈরি করতে পারেন বা এমনকি প্যাটিসও তৈরি করতে পারেন।

৪. তিলের বীজ: তিলের বীজে প্রধানত ১৫% স্যাচুরেটেড ফ্যাট, ৪১% পলিআনস্যাচুরেটেড ফ্যাট এবং ৩৯% মনোস্যাচুরেটেড ফ্যাট থাকে। এটি হৃদরোগের ঝুঁকি কম রাখতে সাহায্য করে এবং কোলেস্টেরলের মাত্রাও কমায়। এগুলি প্রোটিন সরবরাহ করে যা আমাদের শরীরের গঠনে সহায়তা করে। এগুলি হাড়ের স্বাস্থ্যের উন্নতিতে সাহায্য করে এবং ক্যান্সারের ঝুঁকিও কমায়।

কীভাবে তিলের বীজ সেবন করবেন?

এটি ভাজা, অঙ্কুরিত বা জলে ভিজিয়ে রাখার পরেও খাওয়া যেতে পারে। আপনি তিল এবং গুড় ব্যবহার করে চিক্কি বা লাড্ডুও বানাতে পারেন যা স্বাস্থ্য উপকারের দ্বিগুণ ডোজ হিসাবে কাজ করে।

আপনার খাবারকে বাড়তি ওম্ফ দিতে এটি ভাজা সবজিতেও যোগ করা যেতে পারে।

৫. কুমড়ো বীজ: কুমড়োর বীজ অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ যা উর্বরতা বৃদ্ধিতেও সহায়ক হতে পারে। এছাড়াও এগুলি ফসফরাস, মনোস্যাচুরেটেড ফ্যাট এবং ওমেগা-৬ ফ্যাট সমৃদ্ধ। এগুলিতে ফাইটোস্টেরল রয়েছে যা রক্তের কোলেস্টেরল কমাতে সাহায্য করে। একটি গবেষণায় আরও দেখা গেছে যে, কুমড়োর বীজ সেবন স্তন ক্যান্সারের সম্ভাবনা কমাতে পারে।

কুমড়োর বীজ আপনার প্রস্রাবে ক্যালসিয়ামের মাত্রা কমাতে সাহায্য করে ফলে মূত্রাশয়ে পাথর হওয়ার সম্ভাবনা কিছুটা কমে।

কীভাবে কুমড়া বীজ সেবন করবেন?

প্রত্যহ রোস্ট করা বীজ হিসাবে এটি শুধুমাত্র আপনার স্যালাডে যোগ করে খেতে পারবেন।

Sanjana Chakraborty

My name is Sanjana Chakraborty. I'm a content writer. Writing is my passion. I studied literature, so I love writing.

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button